ডেস্ক রিপোর্টার,১লা মে।।
রাজ্যের মোট জনসংখ্যার ৪২শতাংশ ওবিসি সম্প্রদায়ভুক্ত। অর্থাৎ বড় ভোট ব্যাংক।কিন্তু কোনো এক অজ্ঞাত কারণে প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেসের কাছে ব্রাত্য থেকে গেলো ওবিসি সম্প্রদায়ভূক্ত লোকজন! গুঞ্জন তৃণমূল শিবিরে।
প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেসের ওবিসি সম্প্রদায়ভুক্ত কর্মী-সমর্থকদের বক্তব্য, প্রদেশ কমিটিতে এসসি সেল ও এসটি করা হয়েছে পৃথক ভাবে।কিন্তু নেই ওবিসি সেল। কেন ওবিসি সেল করা হয়নি?এই প্রশ্নের উত্তর খোঁজছে দলের ওবিসি সম্প্রদায়ভুক্ত লোকজন।তবে এটাও বাস্তব তৃণমূল কংগ্রেসের প্রদেশ কমিটিতে ওবিসি সম্প্রদায়ের ৩২জন প্রতিনিধিকে রাখা হয়েছে বিভিন্ন স্তরে।

রাজ্যের সবকটি রাজনৈতিক দলের পৃথক ওবিসি সেল রয়েছে। কিন্তু তৃণমূল কংগ্রেসের কোনো ওবিসি সেল না থাকায় তা নিয়ে দলের অন্দরে শুরু হয়েছে জল্পনা। বাংলাতেও তৃণমূল কংগ্রেসের ওবিসি সেল রয়েছে।
বঙ্গ তৃণমূলের খবর অনুযায়ী, শনিবার মহাজাতিক সদনে সর্ব ভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের ওবিসি সেলের জাকজমকপুর্ণ অনুষ্ঠান ছিলো।এই অনুষ্ঠানে সর্ব ভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র কুনাল ঘোষ উপস্থিত ছিলেন। প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি আশীষ লাল সিংকে সংবর্ধনা দেওয়ার কথা ছিলো।কিন্তু তিনি সেখানে যেতে পারেননি ব্যক্তিগত কাজে ব্যস্ত থাকায়।তাহলে ত্রিপুরায় কেন থাকবে না ওবিসি সেল? উঠছে প্রশ্ন।
রাজনীতিকরা মনে করছেন, হয়তো বা এটা প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাথমিক ভুল।অচিরেই তারা ভুল শুধরে নেবে।এবং প্রথা অনুযায়ী গঠন করবে ওবিসি সেল। তবে প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেসের ওবিসি সেল না গঠন করার পেছনে দলের থিঙ্ক-ট্যাঙ্কদের পৃথক কোনো কৌশল আছে কিনা,তা এখনো স্পস্ট নয় সংশ্লিষ্ট মহলে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.