ডেস্ক রিপোর্টার,১লা মে।।
দুস্কৃতির হাতে আক্রান্ত কংগ্রেস নেতা সুদীপ রায় বর্মনের দেহরক্ষী ও গাড়ির চালক।দুস্কৃতিরা সুদীপ রায় বর্মনের দেহরক্ষীর সার্ভিস রিভলভার ছিনিয়ে নেয়। অভিযোগ খোদ সুদীপ রায় বর্মনের। সুদীপের অভিযোগের তীর বিজেপি’র দিকে। ঘটনা রবিবার দুপুরে, কৃষ্ণনগর ছাত্র সংঘ ক্লাব সংলগ্ন এলাকায়। প্রাক্তন বিধায়ক সুদীপ রায় বর্মনের দেহরক্ষী রমেশ বিন এই বিষয়ে আগরতলা পশ্চিম থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। তদন্ত করছে পুলিশ।কিন্তু এখন পর্যন্ত নেই কোনো গ্রেফতার।

সুদীপ রায় বর্মন জানিয়েছেন, এদিন তিনি এবং অপর কংগ্রেস আশীষ সাহা গিয়েছিলেন আইনজীবী সৌমিক দেবের বাড়িতে। সেখানে একটি আইনী বিষয় নিয়ে আইনজীবীর সঙ্গে চলছিলো আলোচনা। এমন সময় তারা ঘর চিৎকার চেঁচামেচি শুনতে পান। এময় প্রায় বিজেপি’র বাইক বাহিনী চড়াও হয়।

সুদীপের বক্তব্য, বিজেপি বাইক বাহিনী ঘটনাস্থলে এসে তাঁকে খোঁজ করছিলো। কিন্তু পায়নি। সামনেই ছিলেন তাঁর দেহরক্ষী ও গাড়িটি চালক। বাইক বাহিনীর সদস্যরা সরাসরি দেহরক্ষী ও চালককে মারধর শুরু করে।উভয়েই রক্তাক্ত হন। চালকের হাত ভেঙে যায়।

সুদীপ রায় বর্মনের অভিযোগ, তাঁর দেহরক্ষীর সঙ্গে থাকা সার্ভিস রিভলভারটিও দুস্কৃতিরা ছিনিয়ে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে পশ্চিম থানার পুলিশ। গাড়ির আহত চালক ও দেহরক্ষীকে পুলিশ দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যায়। তবে চালকের শারীরিক অবস্থা ভালো নয়। এই ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন আইনজীবী সৌমিক দেব। তিনি বলেন,” আইনজীবীর কাছে এসেও মানুষকে আক্রান্ত হতে হচ্ছে। এর আগে রাজ্যে এমন ঘটনা ঘটেনি। দুস্কৃতিরা ধারালো অস্ত্র নিয়ে আক্রমণ করেছিলো।

এদিনের ঘটনার পর সুদীপ রায় বর্মন বলেন, “রাজ্যে গণতন্ত্র বিপন্ন। চলছে জঙ্গলরাজ।এর আগে ত্রিপুরাতে এরকম জঙ্গলরাজ দেখা যায়নি।”সুদীপের কথায়, “মানুষ এই জঙ্গলরাজ মেনে নেবে না।জবাব দেবে উপযুক্ত সময়ে।”

Leave a Reply

Your email address will not be published.