ডেস্ক রিপোর্টার,১সেপ্টেম্বর।।
সেকেরকোর্ট বোমা বিস্ফোরণ কাণ্ডের মাস্টার মাইন্ড তথা প্রাক্তন টিএসআর জওয়ান মিঠন দাস এখনো পুলিশের ধরাছোঁয়ার বাইরে। মিঠন দাস দীর্ঘ দিন ধরেই গোটা অঞ্চলে মাফিয়ারাজ কায়েম করেছে। কিন্তু তাকে কেউ কিছু বলার সাহস করে নি। অভিযোগ তার সঙ্গে স্থানীয় কয়েকজন বিজেপি নেতৃত্বের সম্পর্ক রয়েছে।নেতাদের আস্কারা পেয়েই মিঠন দাস দিনের পর দিন অপরাধ মূলক কার্যকলাপ চালিয়ে যাচ্ছে গোটা এলাকায়। তোলা আদায় থেকে শুরু করে জমির দালালি,নিগোসিয়েশন বাণিজ্য,সবেতেই সিদ্ধহস্ত মিঠন দাস।
সেকেরকোর্ট এলাকায় মঙ্গলবার গভীর রাতে পর পর চারটি বোমা বিস্ফোরণ করে গোটা এলাকার জনমনে আতঙ্ক ছড়িয়ে দেয় মিঠন দাস।সঙ্গে তার অনুগামীরা।এদিন ঘটনার পর পর দুই যুবককে আটক করেছিলো স্থানীয় লোকজন।কিন্তু মিঠন দাসের কাছে জনতার লম্বা হাত পৌঁছাতে পারেনি। স্বাভাবিক ভাবেই সমাজদ্রোহী মিঠন দাস আছে বহাল তবিয়তে।
মঙ্গলবার গভীর রাতে বোমা বিস্ফোরণ কাণ্ডের মাস্টার মাইন্ড মিঠন। এলাকার পুরাতন বাজার, নিউ মার্কেট,সহ ঐক্যতান ক্লাব এলাকায় বোমা বিস্ফরণ ঘটায়।কেন এই বিস্ফোরণ? কাদের উদ্দেশ্য করে ? আমতলী থানার পুলিশের দাবি, নির্দিষ্ট করে কাউকে লক্ষ্য করে বোমা বিস্ফোরণ করেনি দুষ্কৃতীরা।তাদের মূল উদ্দেশ্য এলাকায় ক্ষমতা জাহির করা এবং আতঙ্ক বিস্তার । এর ফলে তাদের প্রতিপক্ষ গোষ্ঠি চলে যাবে পর্দার অন্তরালে। তাতে মিঠন গোষ্ঠী হাত খুলে কাজ করতে পারবে।স্থানীয় অপরাধ জগতের কালো টাকা ধরতে পারবে তারা। আতঙ্ক বিস্তার করে নিজেদের অপরাধ বাণিজ্যকে আরো শক্তিশালী করাই তাদের মূল উদ্দেশ্য। মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিস্তার করতে পারলে তাদের বিরুদ্ধে ভয়ে কেউ মুখ খুলবে না।তখন মিঠন ও তার অনুগামীরা হাত খুলে কাজ করতে পারবে।এই চিন্তা ভাবনা থেকে বোমা নিয়ে খেলা শুরু করলো প্রাক্তন টিএসআর কর্মী মিঠন ও সাদগেররা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.