প্রদেশ বিজেপির সহ-সভাপতি আমিত রক্ষিত।

ডেস্ক রিপোর্টার, ৩রা অগাষ্ট।।
আজকাল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয় থাকেন রাজনৈতিক নেতারা।সমস্ত স্তরের রাজনৈতিক নেতারাই তাদের নানান রাজনৈতিক কার্যকলাপ তুলে ধরেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। আবার বিপক্ষ রাজনৈতিক দল ও বিপক্ষ শিবিরের নেতাদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানান কটাক্ষও করে থাকেন রাজনেতারা। ব্যতিক্রম নয় ত্রিপুরাতেও। রাজ্যের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা সক্রিয় থাকেন সোশ্যাল মিডিয়ায়।
রাজ্যের রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে কিছুটা ব্যতিক্রম প্রদেশ বিজেপির সহ-সভাপতি অমিত রক্ষিত। বলছে নেটিজেনরা। তাদের বক্তব্য, অমিত রক্ষিত বরাবর সক্রিয় থাকেন টুইটারে। এবং এই টুইটারে তিনি আক্রমণ করেন দেশের প্রথম সারির নেতাদের। তবে যুক্তিপূর্ণ ইস্যুতে। সম্প্রতি বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে নিয়ে তীব্র সমালোচনা করেন অমিত রক্ষিত।

মমতাকে টুইটারে অমিতের কটাক্ষ।

সম্প্রতি পশ্চিমবাংলার মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের আর্থিক কেলেঙ্কারির পর অমিত রক্ষিত তার টুইটারে একটি ছবি পোস্ট করেন। ছবিতে দেখা যাচ্ছে একজন মহিলা একটি টাকার তৈরি ফুটবলে পা রেখেছেন। এবং মহিলার পা’টি প্লাস্টার করা। এই ছবি পোস্ট করে অমিত রক্ষিত টুইটারে লিখেন, “Guess who” অর্থাৎ ” অনুমান কর কে?”। ছবিটির পাশেই লেখা আছে “ঘোটালা হবে”।
বিজেপি নেতা অমিত রক্ষিতের টুইটারে পোস্ট করা ছবি দেখে মানুষ অবশ্যই অনুমান করতে পেরেছেন তিনি কে ? তিনি পশ্চিম বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এতদিন মমতা ফুটবলের উপর পা রেখে বলতেন, “খেলা হবে” । আর এখন বাংলায় হচ্ছে ঘোটালা। ঠিক এভাবেই রাজ্যের বিজেপি নেতা অমিত রক্ষিত কটাক্ষ করলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে।

টুইটারে কেজরিওয়ালের মুখোশ উন্মোচন অমিতের।

একইভাবে অন্য একটি ইস্যুতে প্রদেশ বিজেপির সহ-সভাপতি অমিত রক্ষিত টুইটারে আক্রমণ করেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে। দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী প্রায়শই বলে থাকেন তাঁর শাসনকালে দিল্লিতে বেশ কিছু হাসপাতাল তৈরি করেছেন। কিন্তু বাস্তব অর্থে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের এই তথ্য ভুল। এমনটাই টুইট বার্তায় বলছেন, প্রদেশ বিজেপির সহ-সভাপতি অমিত রক্ষিত।
টুইটারে অমিত রক্ষিত একটি আরটিআই’র কপি তুলে ধরেন। আরটিআই অনুযায়ী, অমিত কুমার নামে এক ব্যক্তি দিল্লির স্বাস্থ্য দপ্তরের কাছে আরটিআই’র মাধ্যমে জানতে চান অরবিন্দ কেজরিওয়ালের সময়কালে দিল্লিতে কয়টি হাসপাতাল তৈরি করা হয়েছে। আরটিআই’র মাধ্যমে দিল্লি স্বাস্থ্য দপ্তর জানিয়ে দেয় , ২০২১- র ১লা জুলাই থেকে ২০২২- র ১লা জুলাই পর্যন্ত দিল্লিতে কোনো হাসপাতালের কনস্ট্রাকশনই হয়নি।
আরটিআই’র এই কপির প্রেক্ষিতেই বিজেপি নেতা অমিত রক্ষিত দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে কটাক্ষ করে বলেন, “আরটিআই’র কপি অনুসারে, অরবিন্দ কেজরিওয়াল দিল্লিতে শূন্য হাসপাতাল তৈরি করেছেন।এই দিল্লি মডেলের কথাই তিনি সবসময় অন্য রাজ্যে গিয়েও বলে থাকেন? “
রাজনীতিকরা বলছেন, রাজ্যের অন্যান্য রাজনৈতিক দলের নেতারা টুইটার, ফেসবুক সহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয় থাকেন। তারা অধিকাংশই রাজ্য রাজনীতির বৃত্তের মধ্যে আবদ্ধ থাকেন।তবে অমিত রক্ষিত সোশ্যাল মিডিয়ার জাতীয় স্তরের নেতাদের নানান বিষয় নিয়ে সমালোচনায় মুখর হন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.