ডেস্ক রিপোর্টার,৭জানুয়ারি।।
” রাজ্যের তথ্যমন্ত্রী সুশান্ত চৌধুরী “ডিগবাজি”র মাস্টার।তিনি পরিকল্পিত ভাবে সংস্কারপন্থীদের ব্যবহার করে মন্ত্রী হয়েছেন।বিভিন্ন সময় রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী প্রতিমা ভৌমিক, বিজেপি’র সাধারণ সম্পাদক টিঙ্কু রায় ও পাপিয়া দত্তের বিরুদ্ধে নানান কটূক্তি করেছিলেন।”—-রাজ্যের তথ্যমন্ত্রী সুশান্ত চৌধুরী সম্পর্কে এই ভাষায় নিজের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন সদ্য বিধায়ক পদ হারানো তৃণমূল নেতা আশীষ দাস।
সম্প্রতি আশীষ দাসের বিধায়ক পদ খারিজের প্রসঙ্গে রাজ্যে তথ্যমন্ত্রী সুশান্ত চৌধুরী তাঁর বক্তব্য দিতে গিয়ে বলেছিলেন, “এনাফ ইস এনাফ”। আশীষকে অনেক সময় দেওয়া হয়েছে।তারপরও তিনি করেছেন দল বিরোধী কার্যকলাপ। বাধ্য হয়ে তাঁকে বহিস্কার করা হয়েছে বিধানসভা থেকে।” মন্ত্রী সুশান্ত চৌধুরীর এই বক্তব্যের পর প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস নেতা আশীষ দাস বলেন, “সুশান্ত চৌধুরী ছিলেন কংগ্রেসের।তারপর তৃণমূল কংগ্রেসে গিয়েছেন।তৃণমূল থেকে বিজেপিতে।তাঁর বাবা ছিলেন কমিউনিস্ট নেতা। তিনি বারবার ডিগবাজি খেয়েছেন।”
আশীষ দাসের কথায়, সুশান্ত চৌধুরী বিধায়ক সুদীপ রায় বর্মন সহ সংস্কারপন্থী নেতাদের বারবার ব্যবহার করেছেন নিজের স্বার্থে।তাঁর বিধানসভা এলাকায় মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে জনসভা করেছেন।মুখ্যমন্ত্রী থেকে প্রতিমা ভৌমিক সবার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে এবং সোস্যাল মিডিয়াতে নানান মন্তব্য করেছেন সুশান্ত চৌধুরী। তারপর শুধুমাত্র মন্ত্রীত্বের লোভে তিনি শিবির ত্যাগ করেছেন।
আশীষ দাসের অভিযোগ, সুশান্ত চৌধুরী একজন প্রতারক।তিনি মন্ত্রীত্বের লোভে গুরুকে ছেড়ে দিয়ে পদলেহন করছেন।রাজ্যের মানুষ বুঝে গেছে সুশান্ত চৌধুরীর অবস্থান। আশীষ দাসের এই বক্তব্যের প্রেক্ষিতে ফের যে রাজ্য রাজনীতিতে একটা তর্কের হওয়া বইবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published.