ডেস্ক রিপোর্টার,৭মে।।
“রাজ্যের ডিজি,আইজি-রা এখন নিরুদ্দেশ।কোনো ঘটনার পর তাদের দেখা যায় না।আগে অবশ্যই রাজ্য পুলিশে এমন চিত্র ছিলো না। কোথায় কোনো ঘটনা সংঘটিত হলে পুলিশ কর্তারা ঘটনাস্থলে ছুটে যেতেন।এখন এই দৃশ্য অতীত।”—- রাজ্য পুলিশকে নিয়ে ঠিক এই ভাষায় নিজের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন কংগ্রেস নেতা সুদীপ রায় বর্মন। আগরতলা কংগ্রেস ভবনে সাংবাদিক বৈঠক করে রাজ্যের পুলিশী ব্যবস্থার কড়া সমালোচনা করেছেন।
সুদীপ রায় বর্মন বলেন, প্রতিদিন রাজ্যে খুন, অপহরণ, ধর্ষণ সহ নানান সন্ত্রাসের ঘটনা ঘটে চলেছে। আইন-শৃঙ্খলা একেবারে তলানিতে। আইন-শৃঙ্খলার লেখচিত্র তুলে ধরে সুদীপ ব্যাখ্যা দেন ২০১৮সাল থেকে এখন পর্যন্ত কিভাবে গোটা রাজ্যে বাড়ছে অপরাধ সংক্রান্ত ঘটনা। রাজ্য পুলিশ সংঘটিত অপরাধকে কোনো ভাবেই স্তিমিত করতে পারছে না। এই কারণেই রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে ব্যর্থ বলে দাবি করে তাঁর পদত্যাগ চাইছেন সুদীপ সহ প্রদেশ কংগ্রেস।
প্রাক্তন মন্ত্রী তথা কংগ্রেস নেতা বেশ কিছু দৃষ্টান্ত টেনে বলেন, রাজ্যে বড় বড় অপরাধগুলি যখন সংঘটিত হয়, তখন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার থাকেন রাজ্যের বাইরে। এটা কেন প্রশ্ন সুদীপের?সুদীপ রায় বর্মনের অভিযোগ, রাজ্যের মানুষ যখন সন্ত্রাসে দিশেহারা, তখন প্রায় বন্ধ পুলিশী পেট্রোলিং। পুলিশের গাড়ি,বাইক গুলিকে পেট্রোলিং কোর্টের দেখা যায় না। এর সুযোগ নিয়েই একের পর এক ঘটনা ঘটে চলেছে।রাজধানীতে বিয়ে বাড়ির আক্রমনের ঘটনা প্রসঙ্গ টেনে সুদীপ বলেন, এটা উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে করা হয়েছে।
রাজ্যের নেশা কারবার নিয়েও মুখ খুললেন সুদীপ।তাঁর বক্তব্য, ত্রিপুরা এখন নেশাযুক্ত রাজ্য। প্রতিদিন পুলিশ নেশা সামগ্রী উদ্ধার করেছে।কিন্তু উদ্ধারকৃত নেশা সামগ্রী কোথায়? যদি ধ্বংস করা হতো,তাহলে তা প্রচার মাধ্যমে চলে আসতো,কিন্তু হচ্ছে না। বরং যুব সমাজ প্রতিদিন নেশায় আসক্ত হচ্ছে। আগরতলায় কংগ্রেস ভবনে অনুষ্ঠিত শুক্রবারের এই সাংবাদিক বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি বীরজিৎ সিংহ, প্রাক্তন বিধায়ক আশীষ সাহা এবং এআইসিসি’র নেত্রী সরিতা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.