ডেস্ক রিপোর্টার,৯ এপ্রিল।।
” মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্নের উত্তরে আমি বলেছিলাম যে আমার সবচেয়ে বড় উপলব্ধী, আমি ত্রিপুরার অধিকাংশ মানুষের চাল, চরিত্র, চেহারা বদলাতে পেরেছি।” বক্তা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব।শনিবার বিবেকানন্দ বিচারমঞ্চ আয়োজিত ‘উন্নয়নের দিশায় চার বছর’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে একথা বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

এদিন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব কমিউনিস্টদের তীব্র ভাষায় আক্রমণ করেন।তিনি বলেন, “ব্রিটিশদের চাইতেও কমিউনিস্টরা খারাপ। তারা এসসি, এসটি ও জেনারেলের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করে রেখেছিল। তাদের নীতি হচ্ছে আটকে রাখার নীতি। রাজনীতি কমিউনিস্টদের পেশা।” ভাষণে মুখ্যমন্ত্রী যোগ করেন,” রাজ্যের বর্তমান রাজ্য সরকার শুধু আপনার নয় আপনার ছেলে মেয়ের জন্যেও চিন্তা করে। তাদের জন্য তৈরি হচ্ছে ফরেন্সিক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শুরু করে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান।”

মুখ্যমন্ত্রীর ব্যাখ্যা, যে মানুষ নিজের কর্মজীবনে যত বেশী নাকারত্মকতাকে সরিয়ে সাকারাত্মক হতে পারে সে-ই জীবনে তত সুখি হয়। কমিউনিস্টদের বিরুধে কামান দাগিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন,”২৫ বছর রাজ্যের কর্মচারী ও শ্রমিকদের বন্ধক করা মজদুর বানিয়ে রেখেছিল। এই শ্রমিকদের চাঁদা দিয়ে তৈরি হয়েছিল সিপিআইএম পার্টি। কিন্তু কোন শ্রমিক তাদের সময় মুখ্যমন্ত্রী, মন্ত্রী বা কোন গুরুত্বপূর্ণ পদ পায় নি।”

রাজ্যের পূর্বতন বিরোধী দল কংগ্রেসকেও আক্রমণ করেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, কমিউনিস্ট শাসনের সময় তৎকালীন বিরোধীরা যদি শ্রমিক শোষণের এই তথ্য তুলে ধরতো তাহলে কমিউনিস্ট একদিনও এ রাজ্যে টিকতে পারতো না। বরং তদানীন্তন বিরোধী দল কংগ্রেস কমিউনিস্টদের মতোই কায়দা করে চলতো। তারা কমিউনিস্টদের পথেই করতো রাজনীতি। এই কারনেই কমিউনিস্টরা এতো বছর ক্ষমতায় টিকতে পেরেছিলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published.