ডেস্ক রিপোর্টার,৯মে।। রাজ্যের মন্ত্রী-আমলাদের নামে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুয়ো একাউন্ট করে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে ক্রাইম ব্রাঞ্চ এখন পর্যন্ত আট জনকে গ্রেফতার করেছে। তারা প্রত্যেকেই এই মুহূর্তে পুলিশ হেফাজতে রয়েছে। এই মামলায় জড়িতদের অধিকাংশই বহিঃ রাজ্যের।তবে রাজ্যেও তাদের চাইরা রয়েছে।
সম্প্রতি রাজ্যের দুই মন্ত্রী প্রণজিত সিংহ রায় ও সুশান্ত চৌধুরীর নামে হোয়াটস এপ্সে ভুয়ো একাউন্ট করে অর্থ আদায়ের চেষ্টা করেছিল চক্রের পান্ডারা।একই ভাবে গোমতী জেলার জেলা শাসক এবং খোদ রাজ্য পুলিশের মহানির্দেশকের নামেও ভুয়ো একাউন্ট করে টাকা হাতিয়ে নিয়েছিলো চক্রের পান্ডারা। এখন পর্যন্ত গোটা রাজ্যের বিভিন্ন থানায় এই সংক্রান্ত ৭টি মামলা দায়ের করেছে পুলিশ।তার মধ্যে ৪টি পশ্চিম জেলায়। বাকি তিনটি অন্য জেলাতে।
রাজ্যের একজন আমলার নামে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুয়ো একাউন্ট করে এক লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে ক্রাইম ব্রাঞ্চ কাশ্মীরের এক যুবককে গ্রেফতার করে রাজ্যে নিয়ে এসেছে।তার নাম মঞ্জুর আহমেদ।এর আগে রাজু ঝাট নামে রাজস্থানের আরো এক যুবকের গ্রেফতার করেছিলো ক্রাইম ব্রাঞ্চ। তারা এখন পুলিশ হাজতে।
তদন্তকারী পুলিশ জানিয়েছে, এই চক্র গোটা দেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। দেশের অন্যান্য প্রান্তেও তারা একই কায়দায় আমলা, মন্ত্রী, বিধায়ক সহ প্রতিষ্ঠিত ব্যাবসায়ীদের নামে ভুয়ো ফেসবুক, হোয়াটস এপ্স, টুইটার একাউন্ট খোলে টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এখন পর্যন্ত রাজ্য পুলিশের হাতে আসা তথ্য অনুযায়ী, সারা দেশ থেকে চক্রের পান্ডারা দেড় কোটি টাকার উপর জালিয়াতি করে সংগ্রহ করেছে।
ক্রাইম ব্রাঞ্চের দাবি, চক্রের পাণ্ডাদের সঙ্গে স্থানীয় প্রভাবশালী লোকজন জড়িত। পুলিশ প্রভাবশালীদের নাম সংগ্রহ করেছে। উপযুক্ত সময়ে তাদের জালে তুলবে।তবে এখন পর্যন্ত আট জনকে পুলিশ গ্রেফতার করলেও চক্রের বাদবাকি চাইরা মানুষকে তাদের পাতা ফাঁদে ফেলার চেষ্টা করছে। প্রভাবশালী লোকজনকে সনাক্ত করে তাদের সোস্যাল মিডিয়ায় ভুয়ো একাউন্ট তৈরি করছে।এবং মানুষের পকেট কেটে ফাঁকা করে দিচ্ছে কুশীলবরা।তাই সমাজের নানান ক্ষেত্রের প্রতিষ্ঠিত লোকদের সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছে ক্রাইম ব্রাঞ্চ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.