স্পোর্টস ডেস্ক,১০ এপ্রিল।।
ছুটির মেজাজে বিনোদনের কাছে প্রখর রৌদ্রে প্রচণ্ড উত্তাপও হার মেনেছে রবিবাসরীয় দুপুর। সাংবাদিক বিনোদন ক্লাব, নাম-ই যার পরিচয়। সপ্তাহব্যাপী সাংবাদিকতার কঠিন পেশাগত দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি চৈত্রের প্রখর দাবদাহকে উপেক্ষা করে ছুটির মেজাজে বিনোদনমূলক প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচে শামিল হয় ক্লাব সদস্যরা। নিজেদের মধ্যেই হয় প্রীতি ম্যাচ। ফলাফল বিবেচ্য নয়, খেলা শেষে মাঠের একধারে অর্ধনির্মিত গ্যালারিতে বসে, প্যাকেট লাঞ্চ নেওয়ার মধ্য দিয়ে জার্নালিস্ট ক্লাবের সদস্যরা আধ্যাত্মিক রামনবমীর দুপুরটা এমনভাবেই কাটালো। নয়নাভিরাম ভোলাগিরি গ্রাউন্ডে, সকাল দশটায় সদস্যদের সবাইকে এক সারিতে দাঁড়ানো থেকে অনেকটা আইপিএল আদলে নাম ধরে টিম গড়ে, পারস্পরিক সম্প্রীতির বন্ধনকে আরও দৃঢ় করার অঙ্গীকার বদ্ধ হয়ে প্রীতি ম্যাচের সূচনা হয়।

টস জিতে জেআরসি-বি দল প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়। সীমিত ১৬ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৪০ রান সংগ্রহ করে। দলের পক্ষে রবীন্দ্র শর্মার ৫৯ রান এবং অভিষেক দে’র ২২ রান উল্লেখযোগ্য। এছাড়া, সুব্রত দেবনাথ, প্রসেনজিৎ সাহা, মেঘধন দেব, বিশ্বজিৎ দেবনাথ, আবীর পাল, সন্তোষ গোপ, সুমন সাহা, জাকির হোসেন ও সুপ্রভাত দেবনাথ-দের গড় রানের যোগসাজশে দলের স্কোর পৌঁছায় তিন সংখ্যায়।

জেআরসি-‘এ’ দলের পক্ষে অনির্বাণ দেব, সুকান্ত সাহা এবং বাপন দাস প্রত্যেকে দুটি করে এবং তাপস দেব ও প্রণব শীল একটি করে উইকেট পেয়েছেন। জবাবে ব্যাট করতে নেমে জেআরসি-এ দলের ওপেনার বিপ্লব বিশ্বাসের উইকেটটি হারিয়ে, মিল্টন ধর ও মৃদুল চক্রবর্তীর প্রথম উইকেটের জুটিই দলকে জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে দেয়। মৃদুল ৩৪ বল খেলে দুটি বাউন্ডারি ও ৮টি ওভার বাউন্ডারির সাহায্যে ৬৩ রান এবং মিল্টন ধর ৩৩টি বল খেলে দুটি বাউন্ডারি ও পাঁচটি ওভার বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ৪৮ রান সংগ্রহ করে অপরাজিত ভূমিকায় দলকে জয় এনে দেয়। জেআরসি-বি দলের প্রসেনজিৎ সাহা একমাত্র উইকেটটি পেয়েছে। শান্তনু বণিক, দিব্যেন্দু দে এবং বিষ্ণুপদ বণিক সহ অন্যান্যদের ব্যাট করার প্রয়োজন হয়নি, তবে তাঁদের খেলোয়াড় সুলভ দুর্দান্ত ভূমিকায় ম্যাচের আনন্দে অন্যমাত্রা বয়ে এনেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.