ডেস্ক রিপোর্ট,১২ আগস্ট
আচমকা রাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেসের উত্থানে কিছুটা হলেও চিন্তার ভাজ পড়েছে বিজেপি নেতৃত্বের। বিষয়টিকে যথেষ্ট সমীহ করছেন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতারা।এই কারণেই মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব ও প্রদেশ সভাপতি মানিক সাহাকে জরুরি তলব করেছেন দলের সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। বৃহস্পতিবার দিল্লিতে জেপি নাড্ডার পুরোহিত্য হয়েছে বৈঠক।এই বৈঠকে ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী ও প্রদেশ সভাপতি।সঙ্গে ছিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক (সাংগঠনিক) বিএল সন্তোষ ও রাজ্য বিজেপির প্রভরী বিনোদ সোনকর।মূলত বৈঠকে সাংগঠনিক ও প্রশাসনিক বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন বিজেপি নেতৃত্ব।
রাজ্যের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতির বিষয় নিয়েও আলোচনা হয় বৈঠকে। দীর্ঘ এক ঘন্টার বৈঠকে বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি অনুযায়ী রণ কৌশল তৈরির নির্দেশ দিয়েছেন দলের সর্বভারতীয় জেপি নাড্ডা। বর্তমানে রণনীতি পরিবর্তনের পক্ষে মত দিয়েছেন ভাজপার সুপ্রিমো। এই মুহূর্তে বিষয়টি বিশেষ জরুরি বলেও রাজ্যে নেতৃত্বকে জানিয়ে দিয়েছেন। বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে কাল বিলম্ব না করে নয়া কৌশল প্রণয়ন করতে চাইছে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব।বৈঠকেই উপস্থিত মুখ্যমন্ত্রী ও প্রদেশ সভাপতিকে এই বার্তায় দিয়েছেন জেপি নাড্ডা।এক্ষেত্রে সাংগঠনিক সম্প্রসারণেও বিশেষ জোর দেওয়া হবে বলেও দিল্লির বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে খবর।
এদিনের বৈঠক শেষে মুখ্যমন্ত্রী ছুটে যান বিজেপির সর্বভারতীয় সম্পাদক তথা রাজ্যের প্রাক্তন প্রভারী সুনীল দেওধরের বাস ভবনে।দীর্ঘ সময় দুই নেতার মধ্যে রাজ্যের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি সহ নানান গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে।ইতিমধ্যেই সুনীল দেওধর তৃনমূল কংগ্রেসকে কটাক্ষ বলে বলেছিলেন, “ত্রিপুরার মাটিতে ঘাসফুল ফোঁটাতে পারবেন না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।” কারণ বামেদের সঙ্গে লড়াই করে ত্রিপুরা জয়ের অন্যতম কান্ডারী ছিলেন সুনীল দেওধর।তিনি জানেন,ত্রিপুরার আকাশ-বাতাস।এই মানুষের শিরা-ধমনী।এই জন্যই বিজেপির প্রাক্তন রাজ্য প্রভারী সুনীল দেওধর বলেছেন,”ত্রিপুরার মাটি কখনো মুখ ফিরিয়ে চাইবে না তৃণমূলের দিকে।”

Leave a Reply

Your email address will not be published.