সাব্রুম ডেস্ক:১২সেপ্টেম্বর।।
“এক সময় সাব্রুম ছিলো অবহেলিত। আর এখন সাব্রুমে চলছে ঢালাও উন্নয়ন।তারা এখন উন্নয়নের প্রহরীদার।”.—বক্তা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব।সাব্রুমের নব নির্মিত একশ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল উদ্বোধন করে একথা বলেন তিনি। রবিবার তিনি গিয়েছিলেন সাব্রুমে।সঙ্গে ছিলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ভারতী প্রবীণ পাওয়ার , সাব্রুমের বিধায়ক শংকর রায়।
এদিন হাসপাতালের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে সাব্রুম নগর পঞ্চায়েতের স্ব সহায়ক দলের ৩৪ জন বেনিফিশিয়ারিদের মুখ্যমন্ত্রী সেলাই মেশিন বিতরণ করেন।এছাড়া দিব্যাঙ্গদের মধ্যে চব্বিশটি বাইসাইকেল ও দুটি হুইলচেয়ার প্রদান করেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দে।
সরকারি অনুষ্ঠানের শেষে সাব্রুমের মেলার মাঠে ভারতীয় জনতা পার্টির প্রকাশ্যে সমাবেশে অংশ নেন মুখ্যমন্ত্রী। প্রকাশ্য সমাবেশে সিপিআইএম-কংগ্রেস ও তিপ্রামথা থেকে ১১৮৭পরিবারের প্র ৩৬৫১ জন ভোটার বিজেপিতে যোগ দেয়।মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব নবাগতদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন। সঙ্গে ছিলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ভারতী প্রবীণ পাওয়ার ও সাব্রুমের বিধায়ক শঙ্কর রায়।
প্রদেশ বিজেপি’র দাবি ২০১৮-র বিধানসভা নির্বাচনের পর এত সংখ্যক ভোটার একসঙ্গে অন্য দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেয় নি।মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবের হাত ধরে ফের রাজ্য রাজনীতিতে রেকর্ড করলো বিজেপি।
এদিন মুখ্যমন্ত্রী বলেন,” সাব্রুম এখন গোটা দেশের মধ্যে পরিচিত মুখ।মৈত্রীসেতু,বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল,আইসিপি, লজিসটিক হাব সব কিছুই সাব্রুমে।” এক সময় সাব্রুমকে অবহেলা করা হতো।এখন উন্নয়নের জোয়ার বইছে সাব্রুমে। সাড়ে তের কোটি টাকা ব্যয় করে সাব্রুমে তৈরি করা হয়েছে হাসপাতাল।
এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের থেকে পাওয়া টাকার মধ্যে ৮০ কোটি টাকা সাব্রুম শহর উন্নয়নের জন্য খরচ করা হবে। সাব্রুম পুর এলাকাকে ঢেলে সাজানোর জন্য নির্দিষ্ট পরিকল্পনা নিয়েছে রাজ্য সরকার।
মুখ্যমন্ত্রী বলেন, এখন থেকে সাব্রুম হাসপাতালে থাকবেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরাও।সব মিলিয়ে মুখ্যমন্ত্রী সাব্রুমের উন্নয়ন ইস্যুতে পূর্বতন বাম সরকারকেও আক্রমণ করেন।মুখ্যমন্ত্রী স্পস্ট ভাবেই বলেন, সাব্রুম বরাবর একশ শতাংশ বঞ্চিত ছিলো।অথচ সাব্রুমই হলো অর্থনীতির উর্বর ভূমি।
রাজনীতিকরা বলছেন, সাব্রুমে মুখ্যমন্ত্রী এক সঙ্গে দুইটি মাস্টার স্ট্রোক দিয়েছেন। হাসপাতাল উদ্বোধনের পাশাপাশি বিরোধী শিবির থেকে ভোটারকে তিনি শামিল করেছেন বিজেপিতে।সামনেই পুর ও নগর সংস্থার নির্বাচন।নির্বাচনের আগে এই দলত্যাগের ফলে চাপে পড়ে যাবে বিরোধীরা। আসন্ন পুর ও নগর সহ ২৩-র বিধানসভা নির্বাচনে সংশ্লিষ্ট অঞ্চলে এই দলত্যাগ পর্ব অতিরিক্ত অক্সিজেন জোগাবে পদ্ম শিবিরকে।এমনটাই বলছে রাজনৈতিক মহল।
স্থানীয় মেলারমাঠ যোগদান সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব বলেন,
এই রাজ্যে কখনো সিপিআইএম ক্ষমতায় আসতে পারবে না।২৩-এ বিজেপি সরকার গঠন করবে। রাজ্যে নতুন করে জমি খুঁজতে যাওয়া তৃণমূল কংগ্রেসকেও একহাত নেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব। কলকাতা থেকে আগত তৃণমূল কংগ্রেস নেতাদের বাঁদরের সাথে তুলনা করেন তিনি। রাজ্যের মানুষ ও বিজেপি উচিত শিক্ষা দিয়ে তৃণমূল নেতাদের কলকাতায় পাঠাবে বলেও কটাক্ষ করেন মুখ্যমন্ত্রী।

Leave a Reply

Your email address will not be published.