ডেস্ক রিপোর্টার,১২মে।।
২৩-র বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে সংগঠন সাজানোর কাজ শুরু করে দিয়েছে রাজ্য বিজেপি।বেশ কিছু জেলায় নিয়োগ করা হয়েছে প্রভারী ও সহ-প্রভারী।মূলত সংশ্লিষ্ট জেলার সাংগঠনিক কাজকর্ম দেখবেন তারা। একই সঙ্গে সংখ্যালঘু মোর্চার নতুন সভাপতি হিসাবে নিয়োগ করা হয়েছে মহম্মদ শাহ আলমকে। রাজ্য বিজেপি’র প্রদেশ সভাপতি ডা:মানিক সাহা জেলাগুলির নতুন প্রভারী, সহ-প্রভারীদের নিযুক্তি দিয়েছেন।এক প্রেস বিবৃতিতে এই তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে রাজ্য বিজেপি’র পক্ষ থেকে।
প্রদেশ বিজেপি’র খবর অনুযায়ী, ঊনকোটি জেলার প্রভারী ও যুব মোর্চার প্রভারী(সদর শহরাঞ্চলের) হিসাবে নিযুক্ত হয়েছেন টিঙ্কু রায়। কিষান মোর্চার রাজ্য প্রভারী হয়েছেন কিশোর বর্মন,দক্ষিণ জেলা ও মহিলা মোর্চার প্রভারী হয়েছেন পাপিয়া দত্ত। খোয়াই জেলার প্রভারী হয়েছেন অমিত রক্ষিত,ধলাই জেলার প্রভারী সাংসদ রেবতী ত্রিপুরা এবং এই জেলার সহ প্রভারী হয়েছেন যাদব লাল নাথ।
উত্তর জেলা ও সিপাহীজলার(উত্তর) প্রভারী হয়েছেন রাজীব ভট্টাচার্য, সিপাহীজলার দক্ষিণ অঞ্চলের প্রভারী হয়েছেন মোহম্মদ জসীম উদ্দীন। সিপাহীজলার(উত্তর) সহ-প্রভারী হয়েছেন মৌসুমী দাস।সদর জেলার (গ্রামীন) প্রভারী হিসাবে নিযুক্ত হয়েছেন সজল আচার্য,গোমতী জেলার প্রভারী হয়েছেন রতন ঘোষ, জনজাতি মোর্চার রাজ্য প্রভারী হয়েছেন রামপদ জমতিয়া,ওবিসি মোর্চার রাজ্য প্রভারী হয়েছেন তাপস মজুমদার, এসসি মোর্চার প্রভারী হয়েছেন বিধায়ক রেবতী মোহন দাস।
দুয়ারে কড়া নাড়ছে রাজ্য বিধানসভা ভোট। নির্বাচনে অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোকে টেক্কা দিতে শাসক দল ঘর সাজানোর কাজ শুরু করে দিয়েছে। ইতিমধ্যেই পরিবর্তন করা হয়েছে জনজাতি মোর্চার রাজ্য সভাপতিকে। সাংসদ রেবতী ত্রিপুরাকে সরিয়ে দিয়ে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বিকাশ দেববর্মাকে।অর্থাৎ প্রতিটি ক্ষেত্রে বিজেপি নিজেদের সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধি করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। কোনো ভাবেই ২৩-র ভোট যুদ্ধে বিরোধীদের বিন্দু মাত্র জমি ছাড়তে নারাজ শাসক শিবির।

Leave a Reply

Your email address will not be published.