ডেস্ক রিপোর্টার,১৩জুন।।
শাসক দল বিজেপিতে কে হবেন ২৩-র ‘মুখ’। ২৩-এ বিজেপি ফের সরকার গঠন করলে কে হবেন মুখ্যমন্ত্রী? বেশ কিছুদিন ধরেই রাজ্য রাজনীতিতে ঘুরপাক খাচ্ছিলো এই প্রশ্ন।
বিজেপি’র অন্দর মহলে গুঞ্জন ছিলো ডা:মানিক সাহা মুখ্যমন্ত্রী হয়েছে মাত্র কয়েক মাসের জন্য। ২০২৩-র বিধানসভা নির্বাচনে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবকে ‘মুখ’ করে লড়বে দল। এবং দল ক্ষমতায় এলে ফের বিপ্লব কুমার দেব হতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী। এমনকি ২৩-এ বিজেপি’র মুখ্যমন্ত্রীর পদ প্রার্থী হিসেবে নাম উঠে এসেছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রতিমা ভৌমিকেরও।
বিজেপি’র ঘরোয়া রাজনীতিতে যখন এই সমস্ত বিষয় নিয়ে জোর চর্চা চলছে, তখন সব কিছুতেই দাড়ি টেনে দিলেন বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী ডা: মানিক সাহা। রবিবার টাউন বড়দোয়ালি বিধানসভা কেন্দ্রে নির্বাচনী সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে ডা: মানিক সাহা কোনো রকম ইতস্তত না করেই বলে দিয়েছেন, ” ২৩-র বিধানসভা নির্বাচনে প্রদেশ বিজেপি’র ‘মুখ’ তিনি। এবং তাঁকে মুখ্যমন্ত্রীর ‘পদ’ প্রার্থী করেই ভোটে লড়বে দল।” তাই তিনি দলের নেতা-কর্মী-সমর্থকদের বার্তা দিলেন, “গুজবে কান না দেওয়ার জন্য।” ৬-৭ মাসের জন্য তিনি যে মুখ্যমন্ত্রী হননি তাও স্পস্ট করেন। নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহ-জেপি নাড্ডারা তাঁর উপর আস্থা রেখেছেন। এবং তিনি সেই অনুযায়ী কাজ করছেন। সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে দলের নেতা-কর্মী-সমর্থকদের বিভ্রান্ত না হওয়ার বার্তা দিয়েছেন তিনি।
মুখ্যমন্ত্রী ডা: মানিক সাহার এই বক্তব্যের পর বিজেপি’র ঘরোয়া রাজনীতির অন্তর্নিহিত বিষয়টি প্রকাশ্যে চলে এসেছে। মুখ্যমন্ত্রীর কথার অর্থ, আগামী দিনে তিনিই হচ্ছেন প্রদেশ বিজেপি’র সর্বময় কর্তা। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর মার্জিত ভাষায় এই “বক্তব্য” নাড়িয়ে দিয়েছে গোটা বিজেপিকে। এবং বিজেপি’র ঘরোয়া রাজনীতির সমীকরণও স্পস্ট হয়ে উঠেছে বলেই মনে করছে রাজনীতির বিশারদরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.