ডেস্ক রিপোর্টার, ১৪সেপ্টেম্বর।।
              আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে মরণ কামড় দিতে ইতিমধ্যে সর্বশক্তি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছে বামেরা। শহর থেকে সমতল,গ্রাম থেকে পাহাড়।সব জায়গাতেই বামেরা নিজেদের শক্তি প্রদর্শন করছে। এবং পাশে পাচ্ছে সাধারণ মানুষকে।বলছেন, সিপিআইএম নেতৃত্ব।
              বাম নেতাদের বক্তব্য,বিজেপির রক্তচক্ষুকে অপেক্ষা সাধারন মানুষ এখন ঝুঁকছে তাদের দিকে। মানুষ বুঝতে পেরেছে বিজেপি জুমলাবাজ। গত সাড়ে চার বছরে বিজেপি রাজ্যের মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করেছে।এই কারণেই মানুষ বিজেপির উপর আস্থা রাখতে পারছে না।তাই মানুষ সামিল হচ্ছে বাম শিবিরে।
              বাম নেতাদের কথায়, রাজ্য জুড়ে বাড়ছে কমিউনিস্টদের জনপ্রিয়তা।বিজেপি সন্ত্রাস করে মানুষকে আটকাতে পারছে না।প্রতিদিন স্রোত বাড়ছে কমিউনিস্টদের। শহর থেকে সমতল, গ্রাম থেকে পাহাড়,সর্ব ক্ষেত্রে কমিউনিস্টদের জোয়ার। আর তাতেই চিন্তার ভাঁজ পড়ছে ভাজপা শিবিরে।


রাজনীতিকরা বলছেন, গত সাড়ে চার বছরে বিজেপি বামেদের ভোট ভাঙতে পারেনি।বামেদের ভোট ব্যাংক ইনটেক রয়েছে।দীর্ঘ সময় বিজেপির সন্ত্রাসের কারণে বামেরা নিজেদের গুটিয়ে রেখেছিল।কিন্তু বিধানসভা ভোট এগিয়ে আসতেই বাম কর্মী সমর্থকরা মাঠে নেমে গেছে। তার দৃষ্টান্ত পাওয়া যায়, সাম্প্রতিক কালে বামেদের মিছিল, মিটিং গুলিতে।মহকুমা থেকে জেলায় সব জায়গাতেই কর্মসূচি করছে বামেরা। প্রতিটি কর্মসূচিতেই মানুষ বিজেপির সন্ত্রাসকে উপেক্ষা করে পাল্টা চোখ রাঙাচ্ছে।এই পরিস্থিতি বিজেপির জন্য কোনোভাবেই সুখকর নয়।
              বামেরা এতদিন প্রকাশ্যে সংগঠন না করলেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয় ছিলো। সোস্যাল মিডিয়াকে হাতিয়ার করে সংগঠনের বিস্তার করেছিল বামেরা।এর ফল অবশ্যই পাচ্ছে তারা। এখন প্রতিটি সভাতে প্রচুর লোকজনকে পাচ্ছে রাজ্যের বিরোধি দল। রাজ্যের প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলিতে বামপন্থীরা সাধারণ মানুষকে সঙ্গে নিয়ে শক্তি প্রদর্শন করছে।এই কারণেই প্রত্যন্ত অঞ্চল গুলিতেও মানুষ বেরিয়ে আসছে বাড়িঘর থেকে। বামেরা এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারলে আসন্ন ভিলেজে ভোটেই চমক দিতে পারে তারা। টেক্কা দেবে বিজেপিকে। এবং নিঃশ্বাস ফেলবে তিপ্রামথার ঘাড়ে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.