ডেস্ক রিপোর্টার,১৫মার্চ।।
রাজ্যের চা শিল্পের প্রসারে এগিয়ে এলো রাজ্য সরকার। স্পস্ট ভাবে বললে খোদ মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব।মঙ্গলবার রাজ্যের বিভিন্ন চা বাগিচার সঙ্গে জড়িত শ্রমিকদের সঙ্গে মত বিনিময় করেন মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্য সরকার রাজ্যের চা শ্রমিকদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নতির জন্য গুচ্ছ প্রকল্পের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তার জন্যই “মুখ্যমন্ত্রী চা শিল্প কল্যাণ প্রকল্প”র ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।
চা শ্রমিকদের সঙ্গে অনুষ্ঠিত মত বিনিময় সভায় মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব জানিয়েছেন,
চা শিল্পের সঙ্গে জড়িত শ্রমিকদের পারিশ্রমিক বাড়িয়ে ১৭৬ টাকা করার উদ্যোগ নিয়েছে রাজ্য সরকার।মুখ্যমন্ত্রী বলেন,এই পেশায় শ্রমদানকারীদের স্থায়ী ঠিকানা প্রদানের লক্ষ্যে ব্যক্তিগত মালিকানাধীন ভূমির ব্যবস্থা, যোগ্য সুবিধাভোগীদের পিএম আবাস যোজনায় ঘরের ব্যবস্থা, সামাজিক ভাতা সহ উন্নত স্বাস্থ্য পরিষেবা, শৌচালয়, পরিশ্রুত পানীয় জল, বিদ্যুৎ, সড়ক, রেশন কার্ড, শিক্ষা ও তার উপযোগী অন্যান্য সহায়তা, স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও বীমা, বিশেষ ভাবে সক্ষম শ্রমিকদের জন্য যন্ত্রাদি প্রদান, মানবসম্পদের দক্ষতাবর্ধক বিভিন্ন পদক্ষেপ তাদেরকে এক সুন্দর ও সমৃদ্ধশালী আগামীর পথে এগিয়ে যেতে অগ্রণী ভূমিকা নেবে।
মুখ্যমন্ত্রীর দাবি, রাজ্যের প্রায় ৫৪টি চা বাগানের পরিচালন ব্যবস্থার নানান প্রতিবন্ধকতা থেকে পরিত্রানকল্পে, উৎপাদন বৃদ্ধি ও রুগ্নপ্রায় এই শিল্পের উন্মেষে বিবিধ পরিকল্পনার ফলে সমৃদ্ধির পথে মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে এক সময়ে উপেক্ষিত এই শিল্প।
” বিপুল সম্ভাবনাময় ত্রিপুরায় উৎপাদিত চা-শিল্পের বিকাশে সময়োপযোগী যথার্থ প্রচার ও প্রসারের প্রশ্নে অবহেলিত ক্ষেত্রটি, বর্তমানে গৃহীত গুচ্ছ পরিকল্পনার ফলশ্রুতিতে ত্রিপুরার ব্র্যান্ড হিসেবে সম্মানজক পরিচিতি দ্বারা বাণিজ্যিক বিপননের নানা দিক বিকশিত হয়েছে ।গুনগতমান নিয়ে স্ব-গৌরবে ত্রিপুরার উৎপাদিত চায়ের পরিচিতি, কদর ও চাহিদার উর্দ্ধমুখীতার ফলে দামও বেড়েছে l” বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

Leave a Reply

Your email address will not be published.