ডেস্ক রিপোর্টার,১৫অক্টোবর।।
উৎসবে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবের অভিনব উদ্যোগ।বিজয়া দশমীতে মুখ্যমন্ত্রীর বাস ভবনে ছিলো সর্ব ধর্মের সমাহার।
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সবকা সাথ সবকা বিকাশ এবং বিশ্বাসের নীতি এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য মুখ্যমন্ত্রী একে একে বিভিন্ন ধর্ম ও সামাজিক সংগঠনের প্রধানদের সঙ্গে মত বিনিময় করেন।ত্রিপুরার ইতিহাসে এর আগে অন্য কোনো মুখ্যমন্ত্রী এমন উদ্যোগ নিতে দেখা যায়নি। এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম বিপ্লব কুমার দেব। তিনিই প্রথম মুখ্যমন্ত্রী যিনি বিজয়া দশমীতে সর্ব ধর্মের সমাহার করতে সক্ষম হয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রী তাঁর বাস ভবনে আসা লোকজনের সঙ্গে বিজয়ার শুভেচ্ছা বিনিময়ের পর কোভিড পরিস্থিতি সহ নানান প্রাসঙ্গিক বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।
প্রতিনিধিদের মধ্যে ছিলেন ত্রিপুরা ব্যাপটিস্ট খ্রিস্টান ইউনিয়নের জিএস রানটুয়া সাংমা ডারলং। ত্রিপুরা ক্যাথলিক চার্চের ফাদার অগিপল।এদিন বিকালে মুখ্যমন্ত্রী বোন বি কে কবিতা প্রজাপিতা ব্রহ্মা কুমারী ইশ্বরিয়ার সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেন।সৎসঙ্গ বিহার থেকে নিশীথ রঞ্জন ভট্টাচার্য, আগরতলা শ্রীকৃষ্ণ মন্দিরের সচিব নিরঞ্জন ঘোষ, স্বামী ধনঞ্জয় দাস কাঠিয়া বাবা মিশনের সচিব সুজিত রায়, ইসকনের প্রেমসাগর প্রভু, পিএসএন রাজু, সিরডি সাই বাবা সেবা মন্দির ট্রাস্টের সচিব স্বপন কুমার বণিক। শহরের বনমালী পুর রামঠাকুর সেবা মন্দিরের সচিব,
বেনুবন বিহারের ত্রিপুরা রাজ্য ভিক্ষু সংঘের প্রতিনিধি, আমতলী বিবেকনগর রামকৃষ্ণ মিশনের মহারাজ স্বামী সুভক্রানন্দ সাক্ষাৎ করেন মুখ্যমন্ত্রী। মুসলিম সম্প্রদায়ের আবদুল রহমান সহ আরো দুইজন প্রতিনিধির সঙ্গেও মত বিনিময় করেন তিনি।দশমী উপলক্ষে রাজভবনে গিয়ে রাজ্যপাল সত্যদেব নারায়ণ আর্যের সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেন মুখ্যমন্ত্রী।

Leave a Reply

Your email address will not be published.