ডেস্ক রিপোর্টার,১৬সেপ্টেম্বর।।
“পঞ্চায়েত সচিব থেকে বিডিও, মুখ্যসচিব থেকে ডিজিপি।কেউ এই রাজ্যে নিরাপদ নয়।গোটা রাজ্যে চলছে জঙ্গলরাজ।” —– বক্তা প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেস নেতা সুবল ভৌমিক।বৃহস্পতিবার সোনামুড়া থানায় গিয়ে একথা বলেন তিনি।
বুধবার সোনামুড়া থানার লকআপে মৃত্যু হয়েছিলো জামাল হোসেন নামে এক আসামীর।মঙ্গলবার রাতে জামালের বলেরডেপা বাড়ি থেকে তাকে পুলিশ গ্রেফতার করেছিলো।তার বিরুদ্ধে এনডিপিএস এক্টস ও ডাকাতির মামলা ছিলো।দাবি সোনামুড়া থানা পুলিশের। জামালের পরিবারের অভিযোগ,পুলিশ তাকে খুন করেছে।থানার লকআপে মৃত্যু হয় তার। এই ঘটনা কেন্দ্র করে তপ্ত হয়ে উঠে রাজ্য রাজনীতি।
বৃহস্পতিবার নিহত জামাল হোসেনের বাড়িতে যান তৃণমূল নেতা সুবল ভৌমিক।তিনি কথা বলেন জামালের মা,স্ত্রী সহ পরিবারের অন্যান্যদের সঙ্গে। সুবল ভৌমিক নিহত জামালের পরিবারের সদস্যদের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন,” ঘটনার রাতে সোনামুড়া থানার পুলিশ জামালের বাড়িতে এসে গুন্ডারাজ চালায়।জামালকে মারতে মারতে তার বাড়ি থেকে নিয়ে যায় পুলিশ।তার বৃদ্ধ মা ও স্ত্রীকেও মারধর করে।”
সুবল ভৌমিকের অভিযোগ,পুলিশী অত্যাচারে থানার মধ্যেই মৃত্যু হয় জামাল হোসেনের।পুলিশ বিভিন্ন সময় বিভিন্ন বক্তব্য দিছে।সোনামুড়া থানা পুলিশের বক্তব্য,সন্দেহ জনক। তৃণমূল নেতা সুবল ভৌমিক এই ঘটনার সুষ্ঠ তদন্তের দাবি জানান।এবং নিহতের পরিবারকে ২৫লক্ষ টাকা দেওয়ার দাবি জানান সরকারের কাছে।সঙ্গে এই মামলার অনুসন্ধানকারী পুলিশ আধিকারিকদের বরখাস্তের দাবি করেন। দাবি পূরণ না হলে পুলিশ লকআপে জামাল হোসেনের খুনের ঘটনার সুষ্ঠ তদন্তের দাবিতে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তুলবে তৃণমূল জানিয়েছেন সুবল ভৌমিক।

Leave a Reply

Your email address will not be published.