তেলিয়ামুড়া ডেস্ক,১৮ আগস্ট।।

অজানা পোকার আতঙ্কে ভূগছে আঠারোমুড়ার গিরিবাসীরা।পোকার আতঙ্ক থেকে পরিত্রাণ পেতে গিরিবাসীরা অগ্নি সংযোগের মাধ্যমে ধোঁয়া সৃষ্টি করে দিন অতিবাহিত করছে। সভ্য সমাজে যা একেবারেই বেমানান। গিরিবাসীরা অভিযোগ করেছেন,এই অজানা পোকার কামড়ে গ্রামের লোকজন বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে । এই অজানা পোকাকে গিরিবাসীরা “উলানো” পোকা বলে থাকেন। এই পোকা সম্পর্কে তারা এর চেয়ে আর বিশেষ কিছু জানেন না। আঠারো মুড়ার পাদদেশে গোটা পাহাড় জুড়ে জনজাতি সম্প্রদায়ের মানুষের বসবাস। জুম চাষই তাদের উপার্জনের একমাত্র উৎস।
ইদানিং কালে আঠারো মুড়ার পাদদেশে এক রকম পোকার আগমন ঘটেছে।এই পোকাকে “উলানো” পোকা বলে থাকে গিরিবাসীরা। এই পোকার উপদ্রবে অতিষ্ঠ গ্রামের মানুষ।ছোট-বড় সবাইকেই আক্রমণ করছে এই পোকা।কামড়ের সঙ্গে সঙ্গেই ফুলে যাচ্ছে শরীর। পোকা তাড়ানোর একমাত্র উপায় ধোঁয়া।তাই এই উলানো পোকার আক্রমণ থেকে বাঁচতে গিরিবাসীরা প্রতিদিন নিয়ম করে
বাড়িতে আগুন জ্বালিয়ে ধোঁয়া সৃষ্টি করে।ধোঁয়ার প্রকোপ বাড়লেই অজানা পোকার দৌড় ঝাঁপ শুরু হয়।
গ্রামবাসীদের বক্তব্য, এই অজানা পোকার উপদ্রব সম্পর্কে এডিসি প্রশাসনকে তারা জানিয়েছে। বিষয়টি সম্পর্কে অবগত রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর।তারপরও কাউর কোনো হেলদোল নেই। গ্রামবাসীদের দাবি,আঠারোমুড়ার পাদদেশের পাহাড়ি জনপদে ডিডিটি বা ব্লিচিং পাউডার স্প্রে করলে তারা পোকার হাত থেকে নিস্তার পেতে পারে। গ্রামবাসীরা জানিয়েছেন, এই পোকা দেখতে খুব ছোট।দূর থেকে দেখা যায়না। আঠারোমুড়া পাহাড়ের ৪৮ মাইলের কৃষ্ণমণি রিয়াং চৌধুরী পাড়া, ৪৭ মাইলের কুমার রায় পাড়া, করকরি, ও ৪১ মাইলের রায় হামচা গুচ্ছগ্রাম, ৪৩ ও ৪৫ মাইল সহ নুনাছড়া,কাঁকড়াছড়া , হলুদিয়া, তুইকরমা, উত্তর গোকুলনগর, নবমজয়, উত্তর মহারানীপুর এডিসি ভিলিজ সহ আশপাশের বিভিন্ন অঞ্চলে উলানো পোকার প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.