ডেস্ক রিপোর্টার,১৯এপ্রিল।।
রাজ্যের শাসক দল বিজেপি ও বিজেপি-আইপিএফটি পরিচালিত জোট সরকারকে চাপে ফেলতে একের পর এক কৌশল নিচ্ছেন তিপ্রামথার সুপ্রিমো প্রদ্যুত কিশোর দেববর্মন। ইতিমধ্যে তিনি হুঙ্কার দিয়েছেন এডিসির ভিলেজ কাউন্সিলের নির্বাচন নিয়ে তিপ্রামথা দ্বারস্থ হবে আদালতের। ২৩-র বিধানসভা নির্বাচনের আগেই ভিলেজ কাউন্সিলের ভোট করতে চাইছে তিপ্রামথা।কিন্তু এখন পর্যন্ত রাজ্য সরকার ভোট করতে চাইছে না।
প্রদ্যুত কিশোর তাঁর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বলেছেন,” ভিলেজ কাউন্সিলের নির্বাচন কেন করতে চাইছে না বিজেপি?তিনি আদালতে এর কারণ জানতে চাইবেন।” খুব শীঘ্রই ত্রিপুরা উচ্চ আদালতে এই সংক্রান্ত বিষয়ে মামলা দায়ের করবে তিপ্রামথা। এই মুহূর্তে প্রদ্যুত কিশোর আছেন লন্ডন সফরে। ইউনাইটেড কিংডমের পার্লামেন্টে তিনি মঙ্গলবার ভাষণ দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার তিনি “ব্রিজ ইন্ডিয়া” নামক একটি অনুষ্ঠানেও বক্তৃতা দেবেন। এরপর তিনি ফিরবেন দিল্লিতে।সেখান থেকে আসবেন রাজ্যে।
তিপ্রামথা সূত্রের খবর, প্রদ্যুত কিশোর রাজ্যে এসেই ভিলেজ কাউন্সিলের নির্বাচন নিয়ে সরব হবেন। ভিলেজ ভোটের বিষিয়ে প্রদ্যুত কিশোর আর সময় নষ্ঠ করতে চাইছেন না। কারণ দুয়ারে কড়া নাড়ছে বিধানসভা ভোট। প্রদ্যুত কিশোর তাঁর সোশ্যাল মিডিয়ায় বলেছেন,” ভিলেজ কাউন্সিলের নির্বাচনে লড়াই করার জন্য তিপ্রামথা পুরোপুরি প্রস্তুত। ভোটে লড়াই করা মথার অধিকার।কিন্তু রাজ্য সরকার মথার ভোটে লড়াই করার অধিকার কেড়ে নিচ্ছে।
তিপ্রামথার নেতৃত্বের বক্তব্য, এই মুহূর্তে পাহাড়ে ভিলেজ কাউন্সিলের ভোট অনুষ্ঠিত হলে মথা সবকয়টি আসনেই জয়ী হবে। বিজেপি,সিপিআইএম,আইপিএফটি একটি আসনও পাবে না। এই আতঙ্কের কারণেই শাসক দল ভিলেজ ভোট করতে চাইছে না। তাছাড়া সিপিআইএমও এই ইস্যুতে মুখ খুলছে না।২৩-আগে ভিলেজ ভোটে বিজেপি-সিপিআইএমের ফ্লপ করলে তার ব্যাপক প্রভাব পড়বে।এই কারণেই শাসক দল ভোট করতে চাইছে না।তবে আদালত নির্দেশ দিলে অবশ্যই ভোট করতে বাধ্য হবে রাজ্য প্রশাসন।এডিসি নির্বাচনও রাজ্য প্রশাসন করতে চায়নি।শেষ পর্যন্ত আদালতের নির্দেশে অনুষ্ঠিত হয়েছিল এডিসি ভোট।তবে এটাও বাস্তব, করোনা পরিস্থিতির কারণেও ব্যাঘাত ঘটেছিলো এডিসি ভোটে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.