আগরতলা,১৯জুন।।
সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় সোমবার আগরতলায় একটি জনসভায় ভাষণ দেবেন এবং আসন্ন উপ-নির্বাচনে দলের প্রার্থীদের হয়ে প্রচার করবেন। সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের এই সাংসদ একটি রোডশো এবং একটি জনসভায় অংশ নিতে গত ১৪ জুন ত্রিপুরা সফর করেছিলেন।
আগরতলায় আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেন, “অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় সোমবার মানুষের সঙ্গে কথা বলবেন। তিনি ত্রিপুরায় পরিবর্তন আনতে এবং যতটা সম্ভব মানুষের কাছে পৌঁছাতে আগ্রহী।” সাংবাদিক বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন তৃণমূল নেতা মানস ভুঁইয়া ও কৌশানি মুখোপাধ্যায়ও
ত্রিপুরার উন্নতির ক্ষেত্রে তাদের অক্ষমতার জন্য বিরোধী দলগুলির নিন্দা জানিয়ে মানস ভুঁইয়া বলেন, “কংগ্রেস আর বিকল্প নয় কারণ তারা মাটিতে নেমে লড়াই করতে পারে না। আমাদের নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমাণ করেছেন যে তিনি মানুষের জন্য লড়াই করতে পারেন এবং তাঁর দেওয়া প্রত্যেকটি প্রতিশ্রুতি পূরণ করতে পারেন।”
প্রবল বৃষ্টিপাত সত্ত্বেও, তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী ও নেতারা ত্রিপুরার জলমগ্ন রাস্তায় নেমে মানুষের মৌলিক প্রয়োজন মেটাতে আপ্রাণ সাহায্য করছেন। ত্রিপুরা প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেস আগরতলার এই জলমগ্নতার জন্য বিজেপির চরম নিন্দা করেছে
কুণাল ঘোষ বলেছেন, “বিজেপি বারবার বলে আসছে আগরতলা স্মার্ট সিটি হয়ে গিয়েছে। কিন্তু রাস্তাঘাট জলমগ্ন এবং মানুষ বিপদে পড়েছে। আমরা আমাদের কর্মীদের বলেছি যে প্রচার অগ্রাধিকার নয়। তাদের উচিত প্রথমে মানুষের সাহায্য করা এবং পরিবারের জন্য শুকনো খাবারের ব্যবস্থা করা। আসামের নির্লজ্জ বিজেপি নেতারা তাদের বন্যা-বিধ্বস্ত রাজ্যকে দুর্দশায় ফেলে ত্রিপুরায় প্রচারে এসেছেন।”
ত্রিপুরা প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি সুবল ভৌমিক বলেছেন, “বিজেপি কর্মীরা এখন একজোট হয়ে আক্রমণে করছে। আগরতলা কেন্দ্রের প্রার্থী পান্না দেব এবং টাউন বড়দোয়ালী কেন্দ্রের প্রার্থী সংহিতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপর শনিবার প্রায় একই সময়ে বিজেপি কর্মীরা হামলা চালায়। অভিযোগ করেও কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। কিন্তু আমরা এই ধরনের অগণতান্ত্রিক শাসন আর সহ্য করবো না এবং আমরা বিজেপির এই হিংসার বিরুদ্ধে লড়াই করব।”

Leave a Reply

Your email address will not be published.