ডেস্ক রিপোর্টার,২০জানুয়ারি।।
গোটা রাজ্য জুড়ে করোনার বিষ বাষ্প। প্রতিদিন বাড়ছে করোনার আস্ফালন। ধর্মনগর থেকে সাব্রুম সর্বত্রই করোনার ছোঁয়া। রোজ নিয়ম করেই করোনা এক মানব দেহ থেকে অন্য মানব দেহে লাফিয়ে লাফিয়ে বিচরণ করছে। করোনার শৃঙ্খল প্রতিরোধ করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নানান বিধি নিষেধ আরোপ করা হয়েছে।তারপরও করোনার গতি নিম্নমুখী হওয়ার কোনো লক্ষণ নেই।প্রতিদিন রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তরের দেওয়া তথ্য থেকেই স্পস্ট হয়ে উঠছে করোনার ভয়াবহতার চিত্র।
গত ২৪ঘন্টায় রাজ্যে করোনার কামড়ে মৃত্যু হয়েছে আরো সাতজনের।আক্রান্ত হয়েছে ১১৮৫জনের। এখন পর্যন্ত করোনার প্রথন,দ্বিতীয় ও তৃতীয় ঢেউ মিলিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ৮৫২জনের।এই তথ্য নিশ্চিত করেছে রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর। দপ্তরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ঘন্টায় রাজ্যে করোনা আক্রান্তের শতকরা হার ১৩.৬১শতাংশ।এই সময়ে করোনা জয়ী হয়েছে ৬০৯জন।এদিন মোট পরীক্ষিত নমুনার সংখ্যা ছিল ৮৭০৯টি।তার মধ্যে আরটিপিসিআর টেস্ট হয়েছে ৮৬৭টি।আরটিপিসিআর টেস্ট থেকে ৯১জনের শরীরে পাওয়া গেছে ৯১জন করোনা আক্রান্ত রোগীকে।এন্টিজেন টেস্ট থেকে ১০৯৪জন করোনা আক্রান্ত রোগীর সন্ধান পাওয়া গিয়েছে।
রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তরের জেলা ভিত্তিক পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বরাবরের মতো করোনা আক্রান্তের শীর্ষে রয়েছে পশ্চিম জেলা।আক্রান্তের মোট সংখ্যা ৪৩৮জন।তারপরেই দক্ষিণ জেলা। জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা ১৫০জন। ১৪৪জন আক্রান্ত রোগীকে নিয়ে তালিকার তৃতীয় স্থানে গোমতী জেলা।চতুর্থ স্থানে ঊনকোটি জেলা। এই জেলায় আক্রান্ত হয়েছে ১৩১জন।তারপর ধলাই।এই জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা ১২৮। তারপর যথাক্রমে উত্তর জেলা। আক্রান্তের সংখ্যা ১০৭জন। তালিকার নীচে রয়েছে খোয়াই ও সিপাহিজলা জেলা। আক্রান্তের সংখ্যা ৪৬ ও ৪১।
প্রতিদিন করোনার সংক্রমণ রকেট গতিতে বাড়লেও এখনও বহু মানুষ কোভিড-১৯-র বিধি নিষেধকে মান্যতা দিচ্ছে না। এখনো মানুষ সামিল হচ্ছে ভিড় জটলায়। মানুষের মুখে মাস্ক ব্যবহার বাড়লেও এখনো অনেকেই মাস্ক ছাড়াই বাইরে চলাফেরা করছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে মানুষকে সচেতন করলেও আমজনতা তা সঠিক ভাবে মান্যতা দিচ্ছে না।এই কারণেই রোজ নিয়ম করেই বৃদ্ধি পাচ্ছে করোনার সংক্রমণ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.