ডেস্ক রিপোর্টার,২০মে।।
রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবের নিরাপত্তার বহর, সরকারি আবাস ব্যবহার সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে তরজায় মেতে উঠেছে কংগ্রেস-বিজেপি। বাক যুদ্ধে শুরু হয়েছে আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণ।
বিপ্লব ইস্যুতে শুক্রবার সকালে সাংবাদিক বৈঠক করেন কংগ্রেস নেতা সুদীপ রায় বর্মন। বিকালে পাল্টা সাংবাদিক বৈঠক করে সুদীপকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করে বিজেপি।
“এই মুহূর্তে কংগ্রেস আদর্শগত ভাবে দেউলিয়া হয়ে গেছে। তারা জনবর্জিত। তাই লাইম-লাইটে থাকার জন্য বিপ্লব দেব সম্পর্কে অপপ্রচার করছে কংগ্রেস।”—বক্তা রাজ্য বিজেপি’র মুখপাত্র সুব্রত চক্রবর্তী। তিনি কংগ্রেস নেতা সুদীপ রায় বর্মনকে আক্রমণ করে বলেন, বিজেপি সম্পর্কে কিছুই জানেন না সুদীপ।তিনি দীর্ঘদিন করেছেন কংগ্রেস।পরে গিয়েছিলেন টিএমসিতে।সেখান থেকে অল্প সময়ের জন্য এসেছিলেন বিজেপিতে।আবার চলে গেছেন কংগ্রেসে।
বিপ্লব কুমার দেব সংগঠনের স্বার্থেই মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ার ছেড়েছেন হাসি মুখে। নিজের হাত ধরেই মানিক সাহাকে বসিয়ে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ারে। এই সংস্কৃতি সম্ভব হয় শুধুমাত্র বিজেপিতে।সুব্রত চক্রবর্তী, টেনে নিয়ে আসেন ১৯৮৮-১০৯২’র জোট মন্ত্রিসভার মুখ্যমন্ত্রী পরিবর্তনের বিষয়টি।
প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবের নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয় সম্পর্কে সুব্রত চক্রবর্তী বলেন, বিপ্লব দেবের ওয়াই ক্যাটাগরির নিরাপত্তার বিষয়টি দেখছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক বললেই নিরাপত্তা প্রত্যাহার করা হবে।অন্যথায় বহাল থাকবে নিরাপত্তার বহর। প্রসঙ্গ ক্রমে সুব্রত চক্রবর্তী টেনে আনেন, সুদীপ রায় বর্মনের বাবা প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সমীর রঞ্জন বর্মন ক্ষমতায় না থেকেও টানা ২৫বছর বাড়িতে বসিয়ে রেখেছিলো সিআরপিএফকে।
সুব্রত চক্রবর্তী বলেন, রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবকে মানুষ অন্য উচ্চতায় দেখতে চাইছে। বিপ্লব কুমার দেবের হাত ধরেই ২৫বছরের বাম সরকারের পতন ঘটেছিলো।কিন্তু সুদীপ বর্মন এতো বছর বিরোধী শিবিরে থেকে কিছুই করতে পারেননি।বরং রাজ্যের মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.