ডেস্ক রিপোর্টার, ২১অক্টোবর।।
সম্ভবত শুক্রবারেই ঘোষণা হতে চলেছে আগরতলা পুর নিগম সহ অন্যান্য পুর ও নগর সংস্থার নির্বাচন। বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকও করেছেন। তা থেকে পরিষ্কার ভোটের সেমিফাইনালের দিনক্ষণ ঘোষণা শুধু সময়ের অপেক্ষা।
রাজ্য রাজনীতির ২১-র সেমিফাইনালেই এখন ২৩-র ফাইনালের উত্তাপ।সম্প্রতি এক অন-লাইন সমীক্ষা করে ২৩-র বিধানসভা নির্বাচনের গতি প্রকৃতি দিক নির্দেশ করেছিলেন তিপ্রামথার সুপ্রিমো প্রদ্যুত কিশোর দেববর্মন। গত ২৯ অগাস্ট এই সমীক্ষার বিষয়টি সামনে এনেছিলেন প্রদ্যুত কিশোর। সমীক্ষা করেছিলেন টুইটারে।প্রদ্যুত তাঁর সমীক্ষায় এগিয়ে রেখেছিলো তৃণমূল কংগ্রেসকে।বলা হয়েছিলো তৃণমূল কংগ্রেস পাবে ৫৫ শতাংশ ভোট।শাসক দল বিজেপি’র দখলে যাবে ৩৫ শতাংশ ভোট এবং ১০ শতাংশ ভোট যাবে বামেদের ঝুলিতে। প্রদ্যুত কিশোর দাবি করেছিলেন, তাঁর অন-লাইন ভোট সমীক্ষায় ২০হাজার ১১৬জন ভোট দিয়েছে।

তিপ্রামথার সুপ্রিমো প্রদ্যুত কিশোরের এই অন-লাইন ভোট সমীক্ষাকে কটাক্ষ করেছিলেন বিজেপি নেতা অমিত রক্ষিত। তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পাল্টা স্ট্যাটাস দিয়ে দাবি করেছিলেন,”মহাকাশে গঠিত হলো অপার্থিব তৃণমূল সরকার গঠিত হলো”।অমিত রক্ষিত দাবি করেছিলেন, গোটা দেশে ২কোটি ২২লক্ষ লোক টুইটার ব্যবহার করে। ত্রিপুরাতে আছে প্রায় সাড়ে সাত হাজার টুইটার হ্যান্ডেলার।তাদের অর্ধেক ব্যবহার হয়না।স্বাভাবিক ভাবে বিজেপি নেতা অমিত রক্ষিতের প্রশ্ন তাহলে টুইটারে ২০হাজার ১১৬জন কিভাবে ভোট দিলেন? প্রদ্যুত কিশোরের অন-লাইন ভোট সমীক্ষার সঙ্গে বাস্তবতার কোনো মিল নেই বলেই দাবি অমিত রক্ষিতের। এই কারণেই তিনি অপার্থিব তৃণমূল সরকার বলে কটাক্ষ করেছেন।
সম্প্রতি তিপ্রামথার সুপ্রিমো প্রদ্যুত কিশোর গিয়েছিলেন একটি বেসরকারি হাসপাতালে মন্ত্রী এনসি দেববর্মাকে দেখতে। হাসপাতাল চত্বরে দাঁড়িয়ে প্রদ্যুত বলেছিলেন,”তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে তাঁর কোনো কথা হয়নি।নেই কোনো যোগাযোগ।শুধুমাত্র সুস্মিতা দেবের সঙ্গে তাঁর পরিচয় রয়েছে।” রাজনীতিকরা বলছেন, প্রদ্যুত কিশোরের এই বক্তব্যকে যদি সত্যি ধরে নেওয়া যায়,তাহলে তিনি কেন অন-লাইন ভোট সমীক্ষা করলেন?এবং যে সমীক্ষায় তৃণমূল কংগ্রেসকে দেওয়া হয়েছে ৫৫শতাংশ ভোট।আবার এই সমীক্ষাকে অবাস্তব বলে কটাক্ষ করছে বিজেপি।যেখানে সাড়ে সাত হাজার টুইটার হ্যান্ডেলার আছে রাজ্যে,তাদের মধ্যে অধিকাংশ ব্যবহার করেন না।তাহলে ২০হাজার ১১৬জন কিভাবে ভোট দিলেন অন-লাইনে।এই ভোটাররা কি ত্রিপুরার না কি বাংলার? তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিজেপি।
রাজনীতিকদের ভাষায়, প্রদ্যুত কিশোরের এই রকম অন-লাইন ভোট সমীক্ষার পর তিনি বলছেন, তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে তাঁর কোনো যোগাযোগ নেই।প্রদ্যুত কিশোরের এই বক্তব্যকে মান্যতা দিতে পারছে না ভোট বিশ্লেষকরা।তাদের দাবি, ভোট ময়দানে পর্দার আড়ালে অনেক জমজমাট খেলা হয়ে থাকে।তাহলে প্রদ্যুত ও তৃণমূল কংগ্রেসের মধ্যে অন্তরালে কোনো “খেলা” চললেও অবাক কিছু থাকবে না।কারণ রাজনীতিতে সবই সম্ভব। “অসম্ভব” বলে কোনো শব্দ নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published.