সিপাহীজলায় সাংগঠনিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী।

ডেস্ক রিপোর্টার, ২২আগষ্ট।।
রাজ্যে ভিলেজ কমিটির নির্বাচন আসন্ন। যে কোন মুহূর্তেই নির্বাচন কমিশন ভিলেজ ভোটের ঘোষণা দেবে।আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী নভেম্বর মাসের মধ্যে সম্পন্ন করতে হবে এডিসির ভিলেজ কমিটির নির্বাচন। ইতিমধ্যেই নির্বাচন কমিশন ভোট প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে। কমিশনের পক্ষ থেকে জারি করা হয়েছে এই সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তিও। স্বাভাবিকভাবেই প্রতিটি রাজনৈতিক দলের মধ্যেই ভিলেজ কমিটির নির্বাচন নিয়ে শুরু হয়েছে দৌড়ঝাপ।
রাজনৈতিকরা বলছেন, এইবারের ভিলেজ ভোটে লড়াইয়ের মূল অলিন্দে থাকবে এডিসির শাসক দল তিপ্রামথা ও বিরোধীদল বিজেপি এবং সিপিআইএম। কংগ্রেস ভিলেজ ভোটে প্রার্থী দিলেও তারা থাকবে অনেকটাই অপ্রাসঙ্গিক। কেননা পাহাড়ে কংগ্রেসের শক্তি দূরবীন দিয়ে দেখাও দুষ্কর।

গোমতী জেলায় সাংগঠনিক বৈঠক।

রাজনীতিকরা বলছেন, এবারের ভিলেজ কমিটির নির্বাচন রাজনৈতিকভাবে যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ।ভিলেজ ভোটের ফলাফলের প্রভাব পড়বে ২৩’র বিধানসভা নির্বাচনেও। এই কারণেই ভিলেজ কমিটির নির্বাচন নিয়ে যথেষ্ট সতর্ক রাজ্যের শাসক দল বিজেপি। তাই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা বিজেপির রাজ্য সভাপতি ডঃ মানিক সাহা শুরু করেছেন জেলা পরিক্রমা। একে একে রাজ্যের প্রতিটি জেলাতেই কোর কমিটির সদস্যদের নিয়ে বৈঠক করবেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রী রবিবার খোয়াই ও ধোলাই জেলায় পৃথক ভাবে বৈঠক করেন। সংশ্লিষ্ট বৈঠকগুলিতে জেলার বিধানসভা কেন্দ্রগুলির বিধায়ক ও দলের পদাধিকারীরা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকগুলিতে মূলত ভিলেজে ভোটকে সামনে রেখে জেলার সাংগঠনিক বিষয় ও আগামী দিনের কর্মসূচি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে।এর আগে মুখ্যমন্ত্রী সিপাহীজলা জেলায় (উত্তর – দক্ষিণ) সাংগঠনিক বৈঠক করেছিলেন।

খোয়াই জেলায় মুখ্যমন্ত্রীর মুখ্যমন্ত্রীর সাংগঠনিক বৈঠক।

বিজেপি সূত্রের খবর, এই বৈঠক গুলিতেও প্রতিটি জেলার এডিসি এলাকায় দলের সংগঠনের অবস্থার খোঁজ নেন মুখ্যমন্ত্রী। তাছাড়া দলের জনজাতি নেতৃত্ব সহ অন্যান্য নেতারা ভিলেজ কমিটিগুলিতেও কি কি কাজ করেছে এবং কোথায়, কোথায় সমস্যা রয়েছে তা নিয়েও আলোচনা করেন।কারণ আসন্ন ভিলেজ ভোটে বিজেপির মূল প্রতিদ্বন্দ্বী প্রদ্যুৎ কিশোরের তিপ্রামথা।স্বাভাবিকভাবেই লড়াই হবে সম্মুখ সমরে। তিপ্রামথা ও বিনা যুদ্ধে জমি ছাড়বে না। আবার বিজেপিও খোলা ময়দান দেবে না মথাকে। স্বাভাবিক কারণেই এই দুই রাজনৈতিক দলের মধ্যে মূল লড়াই হবে। রাজ্যের পাহাড়ে তার মধ্যে অবশ্যই থাকবে বামেরও। এই কারণেই ভিলেজ ভোট নিয়ে যথেষ্ট তৎপর শাসক দল বিজেপি।
ভিলেজ ভোটে তিপ্রামথাকে হারানোর লক্ষেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা বিজেপির রাজ্য সভাপতি বেরিয়েছেন জেলা পরিক্রমায়।তিনি একের পর এক জেলা পরিক্রমা করে এডিসির ভিলেজ ভোটের কৌশল চূড়ান্ত করছেন মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.