ডেস্ক রিপোর্টার, ২২সেপ্টেম্বর।।
             ২৩- র মহারণ নিয়ে প্রস্তুত রাজ্যের সবকয়টি রাজনৈতিক দল।কেউ কাউকে জমি ছাড়তে নারাজ। ইতিমধ্যেই রাজনীতির ভর কেন্দ্রে চলে এসেছে তিপ্রামথা।এই চিত্র স্পস্ট হয়ে গেছে রাজনীতির অলিন্দে।
             প্রদ্যুৎ কিশোরকে আঁকড়ে ধরে ২৩- এর মহারণে স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে কংগ্রেস। সমতলে শক্ত জমি সাজানোর কাজ করছেন কংগ্রেস নেতৃত্ব।পেছনের দরজা দিয়ে প্রদ্যুতের সঙ্গে সম্পর্ক বজায় রাখছে বামেরাও।পিছিয়ে নেই শাসক দল বিজেপি। কংগ্রেস – সিপিআইএম – বিজেপি প্রত্যেকেই প্রদ্যুৎ নিভরতা দেখাতে শুরু করেছে।আর তাতেই   রাজনীতির ময়দানে মহীরুহ  উঠছে তিপ্রামথা। প্রদ্যুৎ কিশোর বিলক্ষণ বুঝতে পেরেছেন এই বিষয়টি।
             রাজনীতিকরা বলছেন,এই কারণেই প্রদ্যুৎ প্রতিটি রাজনৈতিক দলকে লেজে রেখে খেলাতে শুরু করেছেন। প্রদ্যুৎ কখনো যান প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর দরবারে।আবার কখনো সাড়া দিচ্ছেন অমিত শাহের ডাকে। প্রদ্যুৎ কিশোর কংগ্রেস এবং বিজেপি উভয় শিবিরের  সঙ্গেই সমানভাবে যোগসূত্র রক্ষা করে চলছে। ইতিমধ্যে প্রদ্যুৎ কিশোর বহুবার বলেছেন, যে রাজনৈতিক দল তার দলের দাবি পূরণ করবে তাদের সঙ্গেই লিখিত চুক্তি করবে। ইতিমধ্যেই প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি বীরজিত সিনহা বলেছেন তিপ্রামথার সঙ্গে লিখিত চুক্তি করতেও প্রস্তুত কংগ্রেস।
             রাজনৈতিক মহলে গুঞ্জন, প্রদ্যুৎ কিশোর বিজেপি এবং কংগ্রেস উভয় রাজনৈতিক দলের রাজ্য ও কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সঙ্গে সমান ভাবে ভারসাম্য রেখে চলছেন। উপযুক্ত সময়ে যে দলের পাল্লা ভারী হবে,সেদিকেই ঝুঁকবেন প্রদ্যুৎ। মাঝখানে আছে বামেরা। স্বাভাবিক ভাবেই প্রদ্যুৎ কিশোরের এই ভুমিকা নিয়ে সন্দেহের দানা বাঁধছে রাজনৈতিক মহলে। শেষ পর্যন্ত প্রদ্যুৎ কিশোর কোন দলের দিকে ঝুঁকে তা বলা মুশকিল।এটা স্পষ্ট প্রদ্যুৎ যে রাজনৈতিক দলের সঙ্গে হাত মেলাবেন, ২৩শে সেই রাজনৈতিক দলই মসনদ দখলের ক্ষেত্রে এগিয়ে থাকবে।এই কারণেই প্রদ্যুৎ কিশোর প্রতিটি রাজনৈতিক দলকে এখন  চক্রির মতো ঘুরছেন। এবং প্রত্যেক রাজনৈতিক দলের সঙ্গেই নিজের দাম হাকাচ্ছেন মথার সুপ্রিমো।

Leave a Reply

Your email address will not be published.