ডেস্ক রিপোর্টার, ২৩সেপ্টেম্বর।।
              উৎসবের মুখে জোর ধাক্কা খেলো শাসক দল বিজেপি। সঙ্গে বলা চলে প্রদেশ কংগ্রেস। শুক্রবার বিজেপি ও কংগ্রেসকে চমকে দিয়ে বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন করবুক বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক বুর্বু মোহন ত্রিপুরা। একই সঙ্গে তিনি বিজেপি থেকেও পদত্যাগ করেছেন। এদিন বিধানসভায় এসে অধ্যক্ষ রতন চক্রবর্তীর হাতে  পদত্যাগ পত্র তুলে দিয়েছেন। ৪৩ নম্বর বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক বুর্ব মোহন ত্রিপুরা তার সঙ্গে ছিলেন তিপ্রামথার সুপ্রিমো প্রদ্যুৎ কিশোর দেববর্মন। এবং প্রাক্তন বিধায়ক বৃষকেতু দেববর্মা।
             
                   রাজ্য বিধানসভায় প্রদ্যুৎ কিশোর উপস্থিতি প্রমাণ করে দিয়েছে বুর্ব মোহনের পরবর্তী গন্তব্যস্থল কোথায়? তিপ্রামথার সুপ্রিমো প্রদ্যুৎ কিশোর দেববর্মন সাংবাদিকদের জানিয়ে দিয়েছেন  বর্বু মোহন ত্রিপুরা বিধায়ক পদ এবং বিজেপি থেকে ইস্তফা দিয়েছেন। এই মুহূর্তে বর্বু মোহন কোন জাতীয় রাজনৈতিক দলের হয়ে কাজ করতে চাইছেন না। তিনি  তিপ্রাসাদের স্বার্থে রাজনীতি করতে চাইছেন । প্রদ্যুৎ কিশোরের এই বক্তব্য থেকে স্পষ্ট, বুর্ব মোহন ত্রিপুরা যোগ দিতে চলছেন তিপ্রামথাতেই। এদিন সন্ধ্যায় সাংবাদিক সম্মেলনে বুর্ব মোহন ত্রিপুরা আনুষ্ঠানিকভাবে যোগ দেবেন তিপ্রামথাতে। এমনই খবর রাজ অন্দরে।


বুর্ব মোহন ত্রিপুরার এই সিদ্ধান্তে কিছুটা হলো ব্যাকফুটে চলে গিয়েছে প্রদেশ কংগ্রেস। কংগ্রেস শিবিরের বক্তব্য ছিল, শারদ উৎসবের পরেই বুর্ব মোহন ত্রিপুরা, দ্বিবাচন্দ্র রাংখল, প্রশান্ত দেববর্মা ও প্রমোদ রিয়াং বিজেপির এই চার বিধায়ক যোগ দেবেন কংগ্রেসে। এক সময় এরা প্রত্যেকেই ছিলেন সুদীপ রায় বর্মনের (সুদীপ যখন বিজেপিতে ছিলেন) লবিতে। বুর্ব মোহনের সঙ্গে সুদীপের সম্পর্কও অনেক মধুর। কারণ সুদীপ রায় বর্মনের সঙ্গে সরকারি আবাসে বেশ কিছু বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন তিনি।সুদীপ বিজেপি ছাড়ার পরও নানান জায়গায় সুদীপের পাশেই ছিলেন বুর্ব মোহন। সম্প্রতি প্রদেশ কংগ্রেস  বীরজিত সিনহাকেও বুর্ব মোহনের সঙ্গে একই মঞ্চে দেখা গিয়েছিল। করবুকের প্রাক্তন ব্লক কংগ্রেস সভাপতির শ্রাদ্ধানুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বর্বুমোহন।স্বাভাবিক ভাবেই কংগ্রেসের চরম আত্মবিশ্বাস ছিল বুর্ব মোহনকে নিয়ে।তিনি বিজেপি ছেড়ে শামিল হবেন কংগ্রেসেই। কিন্তু কংগ্রেসের দুর্ভাগ্য বুর্ব মোহনকে হাইজ্যাক করে নিয়ে গেল তিপ্রামথার সুপ্রিমো প্রদ্যুৎ কিশোর দেববর্মন। তাতে অংকের গড়মিল হয়ে গেল কংগ্রেসেরও। আগামী দিনে বিজেপির অন্যান্য উপজাতি বিধায়করা যদি দল ছেড়ে দেন, তাহলে তারা কংগ্রেসে নয়, ঝুকবেন তিপ্রামথাতেই বলছেন রাজনীতিকরা। প্রদ্যুৎ কিশোর এর আগেও এডিসিতে বিজেপির শিবিরে আঘাত করেছিলেন  সুনিপুণ ভাবে। এডিসির বিরোধী দল নেতা  হংস কুমার ত্রিপুরাকে তুলে নিয়েছিলেন প্রদ্যুৎ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.