ডেস্ক রিপোর্টার,২৫মার্চ।।
“রাজ্যের মাদ্রাসাগুলিতে তৈরি হচ্ছে সন্ত্রাসবাদী।”— রাজ্য বিধানসভায় দাঁড়িয়ে একথা বলেছিলেন শাসক দলের ছামনু কেন্দ্রের বিধায়ক শম্ভুলাল চাকমা। বিধায়কের এই বক্তব্য নিয়ে তোলপাড় রাজ্য রাজনীতি। পক্ষে-বিপক্ষে নানান জন নানান মতামত দিচ্ছেন।
রাজ্য রাজনীতির এই হট ইস্যুতে নিজেকে দূরে সরিয়ে রাখতে পারলেন না তিপ্রামথার সুপ্রিমো প্রদ্যুত কিশোর দেববর্মন। তিপ্রার প্রধান প্রদ্যুত তাঁর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই সংক্রান্ত বিষয়ে নিজের মতামত দেন।এবং উত্থাপিত করেন কিছু প্রশ্ন।
প্রদ্যুত কিশোর দেববর্মন বলেন, “অনেকেই বিধায়কের বক্তব্যের এক মত প্রকাশ করছেন। তারা কি একবার ভেবে দেখেছেন বিধায়কের এই বিবৃতি বাংলাদেশের মৌলবাদীদের সেখানে থাকা সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে লড়াই করতে কতটা উৎসাহিত করবে?মাঝে মাঝে আমার মনে হয় সীমান্তের দুই পাড়ে একটা ফিক্সড ম্যাচ চলছে”।
তিপ্রার সুপ্রিমো প্রদ্যুত বুঝাতে চেয়েছেন, এপারে মুসলিমদের বিরুদ্ধে দেওয়া বিবৃতি ওপারে মৌলবাদীদের উৎসাহিত করবে সেখানকার সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য। প্রদ্যুত কিশোরের এই বক্তব্য রাজনৈতিক ভাবে যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।
প্রদ্যুত কিশোর তাঁর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দাবি করেন, ” রাজ্যের মাদ্রাসাগুলিকে গুণমান সম্মত আধুনিক শিক্ষা গ্রহণের ব্যবস্থা করতে হবে। কারণ এই মাদ্রাসাগুলিতে শিক্ষা গ্রহন করে শিশুরা যেন সুন্দর জীবন গড়ার পাশাপাশি চাকরির সুযোগ পায়।কিন্তু প্রতিটি মাদ্রাসাকে সন্ত্রাসীদের কেন্দ্র বলা সত্যিই মর্মান্তিক। প্রদ্যুত কিশোরের সটান বক্তব্য, যদি রাজ্যের মাদ্রাসাগুলি সন্ত্রাসবাদীদের কেন্দ্র হয় তাহলে বিধায়কের উচিত সমস্ত তথ্য প্রমান এনআইএ-র কাছে তুলে দেওয়া।তাঁর কাছে নিশ্চয়ই কিছু তথ্য আছে যা আমাদের কাছে নেই।আমি আশ্চর্য হই যে কেন আমরা অনেকেই এই ধরনের আক্রোশ মূলক বক্তব্য শুনলে চুপ থাকি …।”

Leave a Reply

Your email address will not be published.