*শূন্যে পুলিশের ১৭রাউন্ড গুলি

*উভয় সম্প্রদায়ের আহত ১৮জন

*হালাম পাড়ায় ব্রু’দের হামলা

*থানায় মামলা, পাল্টা মামলা

* ভয়ে বাড়ি ছাড়ছে হালাম সম্প্রদায়ের লোকজন


দামছড়া ডেস্ক,২৬জুলাই:
ব্রু ও হালাম দুই জনজাতি গোষ্ঠীর সংঘর্ষে অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠে পানিসাগর মহকুমার দামছড়া। এই গোষ্ঠী সংঘর্ষে উভয় পক্ষে আহত হয়েছে মোট ১৮জন।তাদের মধ্যে চারজনকে ধর্মনগর হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে।বাদবাকি আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসার পর দামছড়া হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।এই ঘটনা কেন্দ্র করে সোমবার সকাল থেকে দফায় দফায় উত্তপ্ত হয়ে ওঠে দামছড়ার কাসকো ক্যাম্প ও হালাম পাড়া।পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ শূন্যে গুলি ছুঁড়তে বাধ্য হয়। ঘটনাস্থলে ছুটে যান উত্তর জেলার জেলা শাসক, পুলিশ সুপার ও মহকুমা শাসক। বিকাল দিকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেও বিরাজ করছে চাপা উত্তেজনা। যেকোনো সময় ফের দুই জনজাতি গোষ্ঠী লিপ্ত হতে পারে সংঘর্ষে।
মিজোরাম থেকে আগত দামছড়া কাসকো ক্যাম্পে পুনর্বাসন পাওয়া ব্রু শরণার্থীরা ক্যাম্পের পাশে থাকা খাস জমি দখল করতে শুরু করে ইদানিং।অভিযোগ স্থানীয় হামলা সম্প্রদায়ের লোকজনের। ক্যাম্পের বাইরে থাকা জায়গাগুলি মূলত দীর্ঘদিন ধরেই হালামদের দখলে।কিন্তু এখন এই সমস্ত জমি দখল নিচ্ছে ব্রু’রা।মূলত এই জমি দখল নিয়েই গত কিছুদিন ধরেই ব্রু ও হালাম সম্প্রদায়ের মধ্যে অশান্তি শুরু হয়।এক পক্ষকাল আগেই এরকম জটিল পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিলো।অবস্থা বেগতিক দেখে হস্তক্ষেপ করেছিলো প্রশাসন। কিন্তু সোমবারের ঘটনা প্রশাসনের আয়ত্তের বাইরে চলে যায়।
দামছড়ার হালাম সম্প্রদায়ের লোকজনের অভিযোগ, এদিন সকালে তাদের একজন দেখতে পান,কাসকো ক্যাম্পের বাইরে থাকা জমিতে ঘর তৈরি করছে ব্রু শরণার্থী শিবিরে লোকজন।তখন হালাম সম্প্রদায়ের এই ব্যক্তি তাতে বাধা দেন।এই খবর শুনে কাসকো ক্যাম্প থেকে শরণার্থীরা দল বেঁধে নেমে আসে।এবং ঘর নির্মাণে বাধা দেওয়া হালাম সম্প্রদায়ের লোকটিকে মারধর শুরু করে। এই জায়গা থেকে শুরু ঘটনার সূত্রপাত।
খবর পেয়ে হালাম সম্প্রদায়ের অন্যান্য লোকজনও ছুটে আসে ঘটনাস্থলে।দামছড়ার কাসকো ক্যাম্প লাগোয়া রাস্তায় ব্রু ও হালাম সম্প্রদায়ের লোকজন আড়াআড়ি ভাবে দুই ভাবে বিভক্ত হয়ে একে অপরের উপর আক্রমণ শুরু করে। দুই জনগোষ্ঠীর প্রকাশ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে গোটা দামছড়ায়। ছুটে আসে দামছড়া থানার পুলিশ।কিন্তু পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনি।জরুরি তলবে আনা হয় অতিরিক্ত টিএসআর।তারপরও দামছড়ার “কুরুক্ষেত্র” দমাতে ব্যর্থ হয় পুলিশ।
পুলিশ প্রশাসনের সামনেই রড, কাঠ সহ ধারালো অস্ত্র নিয়ে এক সম্প্রদায় তার প্রতিপক্ষ গোষ্ঠীর উপর আক্রমণ শুরু করে।পুলিশ নরমে-গরমে ম্যানেজ করতে না পেরে শেষ পর্যন্ত শূন্যে গুলি ছুঁড়তে বাধ্য হয়।প্রথম দফায় পুলিশ শূন্যে গুলি ও টিয়ার গ্যাস ছুড়ে কাসকো ক্যাম্প লাগোয়া রাস্তায়। এখানে পরিস্থিতি কিছুটা থিতু হওয়ার পর উত্তেজিত ব্রু শরণার্থীরা এবার সরাসরি হামলা করে হালাম পাড়ায়।তখন পুলিশ ফের শূন্যে গুলি ছুঁড়তে বাধ্য হয়।দুই দফায় পুলিশ মোট ১৫ -১৬ রাউন্ড গুলি শূন্যে ছুড়েছে।
পরিস্থিতি উত্তপ্ত হওয়ার খবর পেয়ে প্রশাসনিক পদস্থ আধিকারিকরা ছুটে যায় যায় ঘটনাস্থলে। এলাকার পরিবেশ শান্ত রাখতে মোতায়েন করা হয়েছে সিআরপিএফ।উভয় পক্ষ থেকে দামছড়া থানায় মামলা ও পাল্টা মামলা দায়ের করা হয়েছে। দামছড়ায় হালাম জনগোষ্ঠীর লোকজন তুলনায় সংখ্যায় কম।তারা মিজোরাম থেকে আগত ব্রু শরণার্থীদের ভয়ে গ্রাম ছেড়ে আশ্রয় নিচ্ছে নিরাপদ জায়গাতে।জানিয়েছে হালাম জনগোষ্ঠীর লোকজন।তবে এই ইস্যু কেন্দ্র করে যেকোনো সময় দামছাড়াতে জ্বলে উঠতে পারে গোষ্ঠী সংঘর্ষের সলতে।তাহলে অবশ্যই পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ রূপ ধারণ করতে পারে বলে আশঙ্কা করছে খোদ পুলিশ সহ স্থানীয় লোকজন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.