ডেস্ক রিপোর্টার,২৭জানুয়ারি।।
আগামী ১০ফেব্রুয়ারির মধ্যেই তৃণমূল কংগ্রেসের প্রদেশ কমিটি ঘোষণা হবে। একই সঙ্গে যুব তৃণমূল কংগ্রেসের প্রদেশ কমিটি সহ বিভিন্ন জেলা ও ব্লক কমিটি ঘোষণা দেবে দলের হাইকমান্ড। খবর প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেসের অন্দর মহলের।
সম্প্রতি তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যে এসে বলেছিলেন জানুয়ারির শেষ লগ্নে কিংবা ফেব্রুয়ারির গোড়াতেই প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেসের প্রদেশ কমিটির ঘোষণা দেওয়া হবে। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজ্য ত্যাগের পর প্রদেশ কমিটি গঠনের জন্য তোড়জোড় শুরু হয়।ইতিমধ্যে স্থানীয় নেতৃত্ব তৃণমূল কংগ্রেসের প্রদেশ কমিটির একটা খসড়া তৈরি করেছে। তৃণমূল কংগ্রেসের প্রদেশ কমিটিতে চমক থাকতে পারে বলেও দাবি করছেন স্থানীয় নেতৃত্ব।
গত বছর আই-প্যাকের সদস্যদের গ্রেফতারের পর থেকেই তৃণমূল কংগ্রেসের জনপ্রিয়তা বাড়তে শুরু করেছিলো রাজ্যে।কিন্তু প্রদেশ স্টিয়ারিং কমিটি গঠনের পর থেকেই তৃণমূল কংগ্রেসের জনপ্রিয়তাতে কিছুটা চির ধরে।এই কথা অকপটে স্বীকার করেছেন ঘাসফুলের স্থানীয় নেতৃত্ব। তারপরও পুর ও নগর ভোটে তৃণমূল কংগ্রেস ২৩শতাংশ ভোট নিজেদের ঝুলিতে নিতে সক্ষম হয়। রাজ্য রাজনীতির জমিতে মাত্র তিন মাসের চাষবাসের ফলে এই সাফল্য পায় তৃণমূল কংগ্রেস। পুর ও নগর ভোটের এই সাফল্যকে হাতিয়ার করেই ২৩-র মহারণের লক্ষ্যে মাঠে নামতে শুরু করেছে তৃণমূল কংগ্রেস।
প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেসের খবর অনুযায়ী, স্থানীয় নেতৃত্ব ও আই-প্যাক যৌথভাবেই প্রদেশ কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া শুরু করেছে। প্রাথমিক তালিকা তৈরির পর তা ঝাড়াই-বাছাই করে আই-প্যাক পাঠিয়ে দেবে তৃণমূল কংগ্রেসের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে। ঘাসফুলের কোর কমিটি তালিকা খতিয়ে দেখে চূড়ান্ত প্রদেশ কমিটির সদস্যদের নাম ঘোষণা করবে।এরপরই প্রদেশ নেতৃত্ব শুরু করবে ২৩-র মহারণের কার্যকলাপ।
ঘাসফুল শিবিরের রান্না ঘরের খবর, সুবল ভৌমিকের হাতেই দেওয়া হবে দলের ব্যাটন।অর্থাৎ সুবল ভৌমিক হচ্ছে প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি। “সভাপতি”র দৌড়ে সুস্মিতা দেবের নাম উঠে আসলেও নানান কারণে আপাতত তিনি পিছিয়ে গেছেন। যুব তৃণমূল কংগ্রেসের স্টিয়ারিং কমিটির কনভেনার বাপটু চক্রবর্তীকে জায়গা দেওয়া হবে প্রদেশ কমিটিতে। তাকে দেওয়া হতে পারে সম্পাদকের দায়িত্ব। যুবতৃণমূল কংগ্রেসে বাপটুর স্থলাভিষিক্ত হতে পারেন বর্তমান স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য মৃনাল দেবনাথ। অর্থাৎ প্রদেশ যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতির দৌড়ে রয়েছেন মৃনাল।তবে যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতির ইঁদুর দৌড়ে আরো কয়েক জনের নাম রয়েছে।
তৃণমূল সূত্রের দাবি, স্টিয়ারিং কমিটির অন্যতম সদস্য আশীষ লাল সিংকে করা হবে দলের সহ সভাপতি।একই সঙ্গে দলের গুরুত্বপূর্ণ পদে বসানো হবে বিজেপি ত্যাগী প্রাক্তন বিধায়ক আশীষ দাসকে। দলের প্রদেশ কমিটিতে গুরুত্ব দেওয়া হবে মহিলা সদস্যাদের। একই ভাবে তৃণমূল কংগ্রেস জেলা কমিটি ও ব্লক কমিটি গঠনের তোড়জোড় শুরু করেছে। বিভিন্ন জেলা ও ব্লক থেকে পাঠানো হয়েছে তালিকা।এই তালিকা খতিয়ে দেখছে দলের শীর্ষ নেতৃত্ব। প্রাথমিক তালিকা তৈরির পর তা পাঠানো হবে আই-প্যাকের দরবারে।সেখানে ঝাড়াই-বাছাইয়ের পর তালিকা পৌঁছবে কোর কমিটির কাছে। তারপরই শীলমোহর পড়বে জেলা ও ব্লক পর্যায়ের চূড়ান্ত কমিটির সদস্যদের নামে। সর্বোপরি ঘর গুছিয়েই ময়দানে নামবে তৃণমূল কংগ্রেস।কাজ চলছে সেই উদ্দেশ্যেই।এই মুহূর্তে দলের শীর্ষ নেতৃত্ব ব্যস্ত গোয়াতে। গোয়ার ভোটের পরই পুরো শক্তি নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস ঝাঁপাবে ত্রিপুরায়।এমনটাই দাবি করছেন তৃণমূল কংগ্রেসের বঙ্গ নেতৃত্ব।

Leave a Reply

Your email address will not be published.