ডেস্ক রিপোর্টার,২৮ আগস্ট।।
বিজেপি-আইপিএফটি জোট সরকারের প্রশাসনে তাড়া করছে বামমার্গীয় আমলাদের ভূত! বিজেপি লিড সরকার রাজ্যে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর বামমার্গীয় আমলাদের অধিকাংশ রাতারাতি নামাবলী পাল্টে নিয়েছেন।তারাই প্রশাসনে হয়ে উঠেন গদগদে বিজেপি। রীতিমত প্রশাসনের ব্যাটন হাতে নিয়ে শুরু করেন ছড়ি ঘুরাতে। রাজ্য প্রশাসনে কান পাতলেই এরকম বহু আমলার নাম শুনা যায়।
২০২৩-র বিধানসভা নির্বাচনের বাজারের গ্রাফ এখন উঠতে শুরু করেছে।স্বাভাবিক ভাবেই আমলাদের একাংশ এখন আড়ালে আবডালে যোগাযোগ শুরু করে দিয়েছে বাম নেতৃত্বের সঙ্গে। আবার কেউ কেউ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বাম নেতাদের শুভেচ্ছা জানতেও ভুলেন না। আর এই কাজটি অত্যন্ত সুনিপুন ভাবে করলেন খোদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবের ওএসডি তথা পুলিশ আধিকারিক দিলীপ রায়।
রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল সিপিআইএমের রাজ্য সম্পাদক গৌতম দাশ জন্মদিনে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। বিষয়টি অবশ্যই দুঃখ জনক। কিন্তু সিপিআইএম’র রাজ্য সম্পাদক গৌতম দাশকে জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রীর ওএসডি দিলীপ রায়। “স্যার” বলেও গৌতম দাশ বলে সম্বোধন করেছেন তিনি। অর্থাৎ গৌতম দাশের প্রতি প্রকারন্তে “আনুগত্য” প্রকাশ করলেন দিলীপ রায়। বাম জামানা থেকেই এসপি পদ মর্যাদার এই পুলিশ অফিসার কাম চিত্রকর সিপিআইএম নেতা গৌতম দাশের যে “দাস” তাও প্রমান করলেন তিনি।তবে এটা ভর রাম জামানায়। নিন্দুকরা বলছেন, একজন এসপি পদ মর্যাদার অফিসারের এই ভূমিকা বরং খাকি উর্দিকেই কালিমালিপ্ত করেছে বলা চলে।

মুখ্যমন্ত্রীর ওএসডি দিলীপ রায় অবশ্যই বলবেন,তাতে আপত্তি কিসের? ঠিক,তাতে কাউর কোনো মাথা ব্যথা নেই।কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গৌতম দাশকে শুভেচ্ছা জানিয়ে দিলীপ রায় স্পস্ট করে দিলেন, বাম নেতৃত্বের সঙ্গেও তার সুসম্পর্ক রয়েছে।
রাজনীতিকরা বলছেন,এখানেই ভয়। অনেক আমলা রয়েছেন যারা রাতের অন্ধকারে বাম নেতা মানিক সরকার থেকে শুরু করে গৌতম দাশের ডেরায় গিয়ে উঠেন। বিরোধী দলের নেতাদের কাছে ফাঁস করছে সরকারি তথ্য।তারা আবার বিজেপি-আইপিএফটি জোট সরকারের মন্ত্রীদেরও কাছের লোক।এই সমস্ত বামমার্গীয় আমলারাই এখন বিজেপি সরকারের জন্য বড় কাঁটা হয়ে উঠেছে।যে কোনো সময় সরকারি তথ্য তারা পাচার করে সিপিআইএম ও তৃণমূল কংগ্রেসের হাতে তুলে দিতে পারে।এরকম আশঙ্কা করছে শাসক দলের একাংশ নেতৃত্ব।
সংশ্লিষ্ট আমলাদের হাত ধরে পাচার হওয়া তথ্য দিয়ে বিরোধী দলগুলি সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে পারে।১৯৮৮-জোট জামানায়ও সিপিআইএম’র ক্যাডার আমলারা অনেক গোপন তথ্য তুলে দিয়েছিলো তৎকালীন সময়ের বিরোধী দল সিপিআইএম নেতৃত্বের হাতে।এসব তথ্য বিরোধী দল সিপিআইএম’র কাছে ছিলো বারুদের মতো। পাচার হওয়া এই সমস্ত তথ্য দিয়েই জোট সরকারকে নাকানি চুবানি খাইয়েছিলো সিপিআইএম।
বর্তমান বিজেপি-আইপিএফটি জোট সরকারের ঘরেও এই সমস্ত আমলারা বিরাজ করছে। তারা যেকোনো সময় পাল্টি খেয়ে বিপদ ডেকে আনতে পারে বিজেপি সরকারের। তাই মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবকে এই সমস্ত আমলাদের সনাক্ত করে তাদের উপর নজর রাখতে হবে মনে করছে রাজনীতিকরা।
রাজনীতির বিশারাদরা আতঙ্কের প্রহর গুনছে সিপিআইএম নেতা গৌতম দাশকে তার জন্মদিনে মুখ্যমন্ত্রীর ওএসডি দিলীপ রায়ের শুভেচ্ছা বার্তা পাঠানোর মধ্যদিয়ে। কেননা দিলীপ রায় মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবে’র ঘনিষ্ঠ বলেই পরিচিত।কিন্তু এহেন আধিকারিক বাম নেতা গৌতম দাশকে জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানানো যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন রাজনীতিকরা। তবে,রাজ্য পুলিশ প্রশাসন ও সাধারণ প্রশাসনে একাধিক দিলীপ রায় রয়েছেন,যারা নির্দ্বিধায় গৌতম দাসকে আজও “স্যার” বলে কুর্নিশ জানাতে কার্পণ্য করেননি।কারণ তারা বারবার ক্যাডার আমলা হিসাবেই পরিচিত। এটাই তাদের আসল চরিত্র।

Leave a Reply

Your email address will not be published.