ডেস্ক রিপোর্টার,২৯জানুয়ারি।।
রাজ্যে থিতু হচ্ছে করোনা।ধীরে ধীরে কমছে সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা। তাই বলে আত্মতুষ্টিতে ভোগার কোনো কারণ নেই।মানুষকে মেনে চলতে হবে কোভিড বিধি।থাকতে হবে সতর্ক। তাহলেই করোনার সংক্রমণের শৃঙ্খলকে সহজেই আটকানো যাবে।বলছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা।
রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তরের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে করোনার কামড়ে নতুন করে আরো তিন জন নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে।এর ফলে করোনার প্রথম,দ্বিতীয় ও তৃতীয় ঢেউ মিলিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ৮৮৯জনের। গত একদিনে করোনার সংক্রমণ হয়েছে ১৫২জনের শরীরে।মোট পরীক্ষিত নমুনার সংখ্যা ছিলো ৪০১৮টি। তার মধ্যে আরটিপিসিআর টেস্ট হয়েছে ৪১৭টি। আরটিপিসিআর টেস্ট থেকে ১০জনের শরীরে পাওয়া গিয়েছে করোনা ভাইরাস।এন্টিজেন টেস্টের সংখ্যা ছিলো ৩,৬০১টি। এন্টিজেন টেস্ট থেকে ১৪২জনের শরীরে মিলেছে করোনার সন্ধান। এদিন সংক্রমণের শতকরা হার ছিলো ৩.৭৮ শতাংশ।
সংক্রমণের জেলা ভিত্তিক হিসাব অনুযায়ী,পশ্চিম জেলায় সংক্রমণের সংখ্যা ৫২জন। গোমতীতে ২৯জন।উত্তর জেলায় ১৯জন।দক্ষিণ জেলায় সংক্রমণের সংখ্যা ১৬জন।সিপাহিজলা ও উনকোটিতে সংক্রমিত হয়েছে ১১জন করে। ধলাই জেলায় ১০জন ও খোয়াইয়ে ৪জন সংক্রমিত হয়েছে। গত কয়েকদিনের তুলনায় করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যুর গ্রাফ অনেকটা নিম্নমুখী। এই ধারাবাহিকতা বজায় রাখলে আগামী কিছুদিনের মধ্যে করোনার তৃতীয় ঢেউ ধীরে ধীরে নিস্তেজ হয়ে পড়বে বলেই মনে করছে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.